বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'বকেয়া বেতন মেটাতে অভিভাবকদের চাপ সৃষ্টি নয়, সব পড়ুয়া যেন ফুল হাতা জামা পরে'
বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী দীপু মণি। ছবি সৌজন্য–এএনআই।
বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী দীপু মণি। ছবি সৌজন্য–এএনআই।

'বকেয়া বেতন মেটাতে অভিভাবকদের চাপ সৃষ্টি নয়, সব পড়ুয়া যেন ফুল হাতা জামা পরে'

  • শিক্ষামন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দেন, এখন করোনা পরিস্থিতির সঙ্গে সঙ্গে ডেঙ্গুরও সময় চলছে। তাই পড়ুয়াদের ফুল হাতা জামা পরে আসার জন্য বলব।

‌স্কুলের বকেয়া বেতন মেটানো নিয়ে অভিভাবকদের ওপর যেন চাপ সৃষ্টি করা না হয়। সম্প্রতি করোনা আবহের মধ্যেই নির্দেশ জারি করেছেন বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী দীপু মণি। উল্লেখ্য, করোনা বিধি মেনে আজ থেকেই খুলে গেল বাংলাদেশের বিভিন্ন স্কুল।

স্কুল খোলার প্রথম দিন আজিমপুর গভার্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ পরিদর্শন করেন বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী। পরিদর্শনের পর তিনি সতর্ক করে দেন, ‘‌করোনার সময়ে অনেক অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। পড়ুয়াদের বেতন নিয়ে অভিভাবকদের চাপ দেওয়া যেন না হয়।’‌ তবে অভিভাবকদের উদ্দেশ্য তিনি আবেদন করেন, অন্যান্য খরচ কমিয়ে আপনার সন্তানদের বেতন মিটিয়ে দিতে পারেন। কারণ, বেতনের টাকা খুব বেশি নয়। একইসঙ্গে করোনা কালে স্কুল খুললেও সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি জানান, ‘‌অভিভাবকরা স্কুলে গেলেও স্কুল গেটের সামনে ভিড় করবেন না। করোনা পরিস্থিতিতে অভিভাবকদেরও স্বাস্থ্য বিধি মানতে হবে।’‌

এদিন শিক্ষামন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দেন, এখন করোনা পরিস্থিতির সঙ্গে সঙ্গে ডেঙ্গুরও সময় চলছে। তাই পড়ুয়াদের ফুল হাতা জামা পরে আসার জন্য বলব। স্কুলগুলির প্রতি কড়া বার্তা দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী এদিন স্পষ্ট জানিয়ে দেন, এই সময় সব স্কুলকে স্বাস্থ্য বিধি ঠিকভাবে মেনে চলতে হবে। যদি কোনও স্কুল স্বাস্থ্য বিধি না মানে, তাহলে সেই স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উল্লেখ্য, স্কুল খোলার প্রথম দিন পড়ুয়াদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়। পাশাপাশি হাত ধোয়ারও বন্দোবস্ত রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে পড়ুয়াদের মাস্ক পড়াও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

বন্ধ করুন