বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ভ্যাকসিন দেওয়া বেড়েছে বলেই করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা কম, দাবি কেন্দ্রের
 ফাইল ছবি : ব্লুমবার্গ  (Bloomberg)
 ফাইল ছবি : ব্লুমবার্গ  (Bloomberg)

ভ্যাকসিন দেওয়া বেড়েছে বলেই করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা কম, দাবি কেন্দ্রের

কেন্দ্রের তরফে দেশের সার্বিক পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে জানানো হয়েছে, যে সব রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এখনও বেশি হচ্ছে, সেই সব রাজ্যের ওপর নজর রাখা হচ্ছে।

দেশে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিমাণ বেড়েছে বলেই তৃতীয় ঢেউয়ের সময়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। সেইসঙ্গে কমেছে হাসপাতালে ভর্তির সংথ্যাও। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে পরিসংখ্যান তুলে ধরে এই দাবিই করা হয়েছে। তবে স্কুল খোলার বিষয়টি অবশ্য সংশ্লিষ্ট রাজ্যের ওপরই ছাড়তে চাইছে কেন্দ্র।

সম্প্রতি করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের পরিস্থিতির সঙ্গে তৃতীয় ঢেউয়ের তুলনামূলক প্রসঙ্গ টেনে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ জানান, ‘‌গত ৩০ এপ্রিল যখন দেশে নতুন করে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৮০ হাজার ছিল, তখন সারা দেশে তিন হাজারের ওপর মানুষ মারা যেত। এখন সারা দেশে করোনায় নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ১৭ হাজার, তখন করোনায় ৩৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে।’‌ এরপরই ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রসঙ্গ টেনে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব জানান, গত বছর সেই সময় দেশের ২ শতাংশ মানুষ করোনার টিকা পেয়েছিল। এখন সেই সংখ্যাটা ৭২ শতাংশের ওপরে গিয়ে পৌঁছেছে। এখানেই থেমে থাকেননি কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব। ভ্যাকসিন যে করোনা সংক্রমণ অনেকটাই রুখে দিতে পারে, সেকথা তুলে ধরে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব জানান, ভ্যাকসিন নিয়ে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদের শরীরে মৃদু উপসর্গ দেখা গিয়েছে। সেই কারণে যারা এখনও ভ্যাকসিন নেননি, তাঁদের উচিত যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ভ্যাকসিনের ডোজ নিয়ে নেওয়া।

একইসঙ্গে করোনার তৃতীয় ঢেউ যে দেশের মানুষকে ততটা ঘায়েল করতে পারেনি, সেকথা তুলে ধরে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, দিল্লি, মুম্বাইয়ের মতো জায়গায় হাসপাতালের ৮০ শতাংশ বেড খালি পড়ে রয়েছে। কেন্দ্রের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দিল্লিতে যারা ভ্যাকসিন নেননি, তাঁদের মধ্যে ৭৫ শতাংশ মানুষ এই তৃতীয় ঢেউয়ের সময়ে মারা গিয়েছে। অ্যাপোলো হাসপাতালের ই্ন্টালনাল মেডিসিন বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডক্টর সুরঞ্জিত চট্টোপাধ্যায় জানান, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সময়ে পরিস্থিতি যতটা খারাপ হয়েছিল, সেইরকম পরিস্থিতি খারাপ হয়নি। তবে গত কয়েক সপ্তাহে হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে। কেন্দ্রের তরফে দেশের সার্বিক পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে জানানো হয়েছে, যে সব রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এখনও বেশি হচ্ছে, সেই সব রাজ্যের ওপর নজর রাখা হচ্ছে। প্রয়োজনে সেখানে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল পাঠানো হচ্ছে।

বন্ধ করুন