বাংলা নিউজ > ছবিঘর > Minority Scholarship Scam of 144 Crores: সংখ্যালঘু বৃত্তি নিয়ে দুর্নীতি, সরকারের লোকসান ১৪৪ কোটির, এফআইআর করল সিবিআই

Minority Scholarship Scam of 144 Crores: সংখ্যালঘু বৃত্তি নিয়ে দুর্নীতি, সরকারের লোকসান ১৪৪ কোটির, এফআইআর করল সিবিআই

২০১৭-১৮ অর্থবর্ষ থেকে ২০২১-২২ অর্থবর্ষ পর্যন্ত সংখ্যালঘু বৃত্তির নামে দুর্নীতি হয়েছে দেশ জুড়ে। এই দুর্নীতির জেরে কেন্দ্রীয় সরকারের লোকসান হয়েছে প্রায় ১৪৪ কোটি টাকা। গত সোমবার এই দুর্নীতি কাণ্ডে এফআইআর করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

1/5 জানা গিয়েছে, ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষ থেকে ২০২১-২২ অর্থবর্ষ পর্যন্ত ৮৩০টি ভুয়ো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকার থেকে অনুদান নিয়েছে। এই ঘটনায় সরকারি কর্তা, ব্যক্তিরাও জড়িত থাকতে পারেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। এই আবহে অজ্ঞাত পরিচয় সরকারি আধিকারিকদের নামে এফআইআর করে দুর্নীতির তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই।  
2/5 জানা গিয়েছে, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রকাশিত এক রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু মন্ত্রক প্রাথমিক তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল সিবিআই-কে। পরে ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ অ্যাপ্লায়েড ইকোনমিক রিসার্চও এই তদন্তে যুক্ত হয়। তৃতীয় পক্ষকে দিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ অ্যাপ্লায়েড ইকোনমিক রিসার্চ। সেখানেই উঠে আসে দুর্নীতির বিষয়টি।  
3/5 ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ অ্যাপ্লায়েড ইকোনমিক রিসার্চের পর্যালোচনায় দেখা যায়, যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি সংখ্যালঘু বৃত্তি বাবদ সাহায্য পাচ্ছে, তার মধ্যে থেকে ১৫৭২টি প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে খতিয়ে দেখা হয়। তার মধ্যে ৮৩০টি ভুয়ো বা আংশিক ভুয়ো। এই ৮৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চার অর্থবর্ষে মোট ১৪৪ কোটি টাকা পেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে।  
4/5 এদিকে সংখ্যালঘু মন্ত্রকের সচিব এই ইস্যুতে সিবিআই-কে একটি চিঠি লেখেন গত ১০ জুলাই। ততে তিনি বলছেন, সরকারের থেকে মোট ১ লাখ ৮০ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সংখ্যালঘু বৃত্তি প্রদান করা হয়ে থাকে। এর থেকে আশঙ্কা করা হচ্ছে, দুর্নীতির জেরে সরকারের আসল লোকসানের পরিমাণ আরও অনেকটা বেশি হতে পারে। কেন্দ্রের অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও সেই জেলার আধিকারিকদের মদত ছাড়া এই দুর্নীতি সম্ভব ছিল না। কারণ টাকা তো সরাসরি উপবোক্তার অ্যাকাউন্টেই জমা পড়েছে। 
5/5 জানা গিয়েছে, গত পাঁচ বছরে দেশের মোট ৬৫ লাখ সংখ্যালঘু পড়ুয়া কেন্দ্রীয় সরকারের থেকে বৃত্তি পেয়েছে। সরকারের তরফে সংখ্যালঘু পড়ুয়াদের জন্য মোট তিনটি বৃত্তি ব্যবস্থা চালু করা হয়েছিল - প্রি-ম্যাট্রিক স্কলারশিপ স্কিম, পোস্ট-ম্যাট্রিক স্কলারশিপ স্কিম এবং মেধার ভিত্তিতে বৃত্তি প্রকল্প। প্রি-ম্যাট্রিক স্কিমে যাদের পারিবারিক বার্ষিক আয় ১ লাখের কম, তাদের এই বৃত্তি দেওয়া হয়। প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির পড়ুয়ারা হাজার এবং ক্লাস ৬ থেকে দশমের পড়ুয়ারা বার্ষিক ৫৭০০ করে পায়। হস্টেলে থাকলে সেই বৃত্তি হয় ১০ হাজার ৭০০ টাকা।    

আরও ছবি