বাড়ি > ছবিঘর > বিরল ক্যানসার কেড়ে নিল আনন্দকে, মৃত্যুর অপেক্ষায় দিন গুনছে সন্তানহারা বাসন্তী

বিরল ক্যানসার কেড়ে নিল আনন্দকে, মৃত্যুর অপেক্ষায় দিন গুনছে সন্তানহারা বাসন্তী

  • মারা গেল সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যোনের মুখ্য আকর্ষণ বছর দশেকের পুরুষ রয়্যাল বেঙ্গল বাঘ আনন্দ। 
বৃহস্পতিবার ভোর পাঁচটায় মারা গেল সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যোনের মুখ্য আকর্ষণ বছর দশেকের পুরুষ রয়্যাল বেঙ্গল বাঘ আনন্দ। জুনের গোড়ায় তার শরীরে বিরল ক্যানসার ধরা পড়েছিল। ২০১৯ সালের মে মাসে মারা গিয়েছিল আনন্দের ভাই যশ। বছর বারোর যশের দেহেও বাসা বেঁধেছিল ‘রাবডোমায়োসার্কোমা’, যার উৎস এক নরম পেশিবহুল টিউমার। 
1/4বৃহস্পতিবার ভোর পাঁচটায় মারা গেল সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যোনের মুখ্য আকর্ষণ বছর দশেকের পুরুষ রয়্যাল বেঙ্গল বাঘ আনন্দ। জুনের গোড়ায় তার শরীরে বিরল ক্যানসার ধরা পড়েছিল। ২০১৯ সালের মে মাসে মারা গিয়েছিল আনন্দের ভাই যশ। বছর বারোর যশের দেহেও বাসা বেঁধেছিল ‘রাবডোমায়োসার্কোমা’, যার উৎস এক নরম পেশিবহুল টিউমার। 
সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানের পশু চিকিৎসকরা জুন মাসে আনন্দের চোয়ালে শক্ত মাংসের ডেলা আবিষ্কার করেন। তার ঠোঁটও অস্বাভাবিক ফুলে উঠেছিল। রক্ত পরীক্ষায় কিডনির কঠিন সমস্যা ধরা পড়ে। এ ছাড়া তার শরীরে পাওয়া একটি টিউমার মুম্বই ভেটেরিনারি কলেজের পরীক্ষাগারে বায়োপসির পরে জানা যায়, আনন্দ ক্যানসারে আক্রান্ত। 
2/4সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানের পশু চিকিৎসকরা জুন মাসে আনন্দের চোয়ালে শক্ত মাংসের ডেলা আবিষ্কার করেন। তার ঠোঁটও অস্বাভাবিক ফুলে উঠেছিল। রক্ত পরীক্ষায় কিডনির কঠিন সমস্যা ধরা পড়ে। এ ছাড়া তার শরীরে পাওয়া একটি টিউমার মুম্বই ভেটেরিনারি কলেজের পরীক্ষাগারে বায়োপসির পরে জানা যায়, আনন্দ ক্যানসারে আক্রান্ত। 
জাতীয় উদ্যানের রেঞ্জার বিজয় বরাবদে জানিয়েছেন, গত ১০ দিন ধরে আনন্দ কিছু খাচ্ছিল না। শুধুমাত্র চিকেন স্যুপ খাওয়ার ফলে প্রচণ্ড দুর্বল হয়ে পড়েছিল বাঘটি। সাম্প্রতিক কিডনি রিপোর্টে তার সমস্যা আরও গুরুতর হয়েছে বলে জানা যায়। আনন্দের মৃত্যুতে জাতীয় উদ্যানের বড় ক্ষতি হয়ে গেল বলে আফশোস করছেন বরবদে।
3/4জাতীয় উদ্যানের রেঞ্জার বিজয় বরাবদে জানিয়েছেন, গত ১০ দিন ধরে আনন্দ কিছু খাচ্ছিল না। শুধুমাত্র চিকেন স্যুপ খাওয়ার ফলে প্রচণ্ড দুর্বল হয়ে পড়েছিল বাঘটি। সাম্প্রতিক কিডনি রিপোর্টে তার সমস্যা আরও গুরুতর হয়েছে বলে জানা যায়। আনন্দের মৃত্যুতে জাতীয় উদ্যানের বড় ক্ষতি হয়ে গেল বলে আফশোস করছেন বরবদে।
সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানেই জন্ম অনন্দের। তার মৃত্যুর পরে বর্তমানে উদ্যানে চারটি বাঘিনী ও একটি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার রয়ে গেল। এর মধ্যে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে নাগপুরের গোরেওয়াড়া রেসকিউ সেন্টার থেকে আনা হয় সুলতান নামের বাঘটিকে। ওই বছরের অগস্ট মাসে যমজ রয়্যাল বেঙ্গল বাঘিনী বিজলি এ মস্তানিকে আনা হয়। এ ছাড়া জাতীয় উদ্যানে রয়েছে দুই বাঘিনী বাসন্তী (১৮) ও লক্ষ্মী (১০)। এই বাসন্তীরই ৪ সন্তান যশ, আনন্দ, লক্ষ্মী ও পূজা। ২০১৮ সালে সেপ্টিসেমিয়ায় মারা যায় পূজা। ২০১৯ সালে যশ ও এ দিন আনন্দের মৃত্যুর পরে আপাতত চার ভাই-বোনের মধ্যে একমাত্র লক্ষ্মী বেঁচে রইল। বুড়ি বাসন্তীর হাঁটু ও পায়ে অসহ্য যন্ত্রণা। বয়সের কারণে সে দুর্বলও হয়ে পড়েছে খুব। তবে এ ছাড়া তার শরীরে বিশেষ সমস্যা নেই। সঢ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানের পশু চিকিৎসক শৈলেশ পেঠে জানিয়েছেন, বন্দি দশায় রয়্যাল বেঙ্গল বাঘ গড়ে ১৪ থেকে ১৬ বছর পর্যন্ত বাঁচে।
4/4সঞ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানেই জন্ম অনন্দের। তার মৃত্যুর পরে বর্তমানে উদ্যানে চারটি বাঘিনী ও একটি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার রয়ে গেল। এর মধ্যে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে নাগপুরের গোরেওয়াড়া রেসকিউ সেন্টার থেকে আনা হয় সুলতান নামের বাঘটিকে। ওই বছরের অগস্ট মাসে যমজ রয়্যাল বেঙ্গল বাঘিনী বিজলি এ মস্তানিকে আনা হয়। এ ছাড়া জাতীয় উদ্যানে রয়েছে দুই বাঘিনী বাসন্তী (১৮) ও লক্ষ্মী (১০)। এই বাসন্তীরই ৪ সন্তান যশ, আনন্দ, লক্ষ্মী ও পূজা। ২০১৮ সালে সেপ্টিসেমিয়ায় মারা যায় পূজা। ২০১৯ সালে যশ ও এ দিন আনন্দের মৃত্যুর পরে আপাতত চার ভাই-বোনের মধ্যে একমাত্র লক্ষ্মী বেঁচে রইল। বুড়ি বাসন্তীর হাঁটু ও পায়ে অসহ্য যন্ত্রণা। বয়সের কারণে সে দুর্বলও হয়ে পড়েছে খুব। তবে এ ছাড়া তার শরীরে বিশেষ সমস্যা নেই। সঢ্জয় গান্ধী জাতীয় উদ্যানের পশু চিকিৎসক শৈলেশ পেঠে জানিয়েছেন, বন্দি দশায় রয়্যাল বেঙ্গল বাঘ গড়ে ১৪ থেকে ১৬ বছর পর্যন্ত বাঁচে।
অন্য গ্যালারিগুলি