এবার কি ফাঁকা গ্যালারিতেই ডার্বি? (ফাইল ছবি, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
এবার কি ফাঁকা গ্যালারিতেই ডার্বি? (ফাইল ছবি, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

East Bengal vs Mohun Bagan: ডার্বি কি ফাঁকা গ্যালারিতে? উত্তর মিলবে শুক্রবার

অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে টিকিট পাওয়ার পরও সমর্থকদের আশঙ্কা, আদৌও যুবভারতীতে গিয়ে ডার্বি দেখতে পারবেন তো!

প্রতিটা মুহূর্তে টানটান উত্তেজনা। গ্যালারির চিৎকার। আবেগের বিস্ফোরণ । এই চিরাচরিত ছবিগুলি এবার ডার্বিতে নাও মিলতে পারে। কারণ এবার দর্শকশূন্য মাঠে ডার্বি হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। আপাতত সেদিকেই পাল্লা ভারী।

আরও পড়ুন : I-League: আই লিগের রং সবুজ-মেরুন, দেখুন উচ্ছ্বাসের মুহূর্ত

কিন্তু কেন?

প্রাথমিকভাবে করোনাভাইরাসের প্রভাব তেমন না পড়লেও মার্চের শুরু থেকে মারণ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ভারতে ক্রমশ বাড়ছে। করোনার প্রকোপ থেকে বাঁচতে প্রথম থেকেই বড় জমায়েতে এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। সেই কারণেই এবার হোলি উৎসবে অংশগ্রহণ করেননি খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

আরও পড়ুন : I-League: আই লিগে চ্যাম্পিয়ন, ডার্বির আগেই মোহনবাগানকে সংবর্ধনা রাজ্যের

কিন্তু, কলকাতা ডার্বি বা আইপিএলের মতো খেলায় মাঠে প্রচুর দর্শকের সমাগম হওয়াটাই দস্তুর। ডার্বিতে কমপক্ষে ৬০,০০০-এরও বেশি দর্শক গ্যালারি থেকে গলা ফাটান। আর করোনার বাড়বাড়ন্তের মধ্যে খেলার মাঠে এত বড় জমায়েতের ফলে সংক্রমণ ছড়িয়ে পারতে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

আরও পড়ুন : IPL 2020-করোনা আতঙ্কে মাঠে দর্শক নিষিদ্ধ করছে মহারাষ্ট্র সরকার

তাই জমায়েত এড়িয়ে যেতে বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রকের তরফে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই), ভারতীয় অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (আইওএ)-সহ দেশের সমস্ত ক্রীড়া সংস্থার কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরামর্শ মেনে চলার আর্জি জানানো হচ্ছে। পাশাপাশি, যে কোনও খেলায় জমায়েত এড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। যদি খেলা এড়িয়ে (পড়ুন সাময়িকভাবে স্থগিত) না রাখা যায়, তাহলে দর্শকশূন্য মাঠে সেই খেলা হতে পারে>

আরও পড়ুন : Coronavirus update in India: ২০২০-তে করোনাকে কাবু করতে মোদীর হাতিয়ার ১৮৯৭ সালের আইন

কেন্দ্রের এই চিঠির পরই মুষড়ে পড়েছেন সমর্থকরা। আগামী রবিবার ডার্বিতে মাঠে দর্শক ঢুকতে দেওয়া হবে কিনা, তা নিয়ে শুরু হয় জল্পনা। বিশেষত, এটিকের সঙ্গে মিশে যাওয়ার আগে এটাই ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে মোহনবাগানের শেষ ডার্বি হতে চলেছে। ফলে উত্তেজনার পারদ এমনিতেই তুঙ্গে রয়েছে। এদিন সবুজ-মেরুন থেকে টিকিট দেওয়ার সময় সেই উত্তেজনার আঁচ পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন : করোনায় আক্রান্ত নাকি সাধারণ ফ্লু বা সর্দি-কাশি হয়েছে, বুঝবেন কীভাবে?

কিন্তু কেন্দ্রের সেই চিঠির খবর ছড়িয়ে পড়ার খানিকক্ষণের মধ্যেই বাগান থেকে টিকিট দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে অবশ্য আবার টিকিট দেওয়া শুরু হলেও আশ্বস্ত হচ্ছেন না ফুটবল ভক্তরা। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে টিকিট পাওয়ার পরও তাঁদের আশঙ্কা, আদৌও যুবভারতীতে গিয়ে ডার্বি দেখতে পারবেন তো!

আরও পড়ুন : করোনার প্রকোপ থেকে রক্ষা পাবেন কীভাবে, দেখে নিন যাবতীয় তথ্য

তবে সরকারিভাবে এ নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন। শুক্রবার বিকেল চারটের সময় আই লিগের ক্লাবগুলির সঙ্গে ভিডিয়ো কনফারেন্স করবে এআইএফএফ। সেখানেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন : করোনাভাইরাস ছড়াতে পারে টাকা-পয়সা নাড়াচাড়ায়, সতর্ক করল ‘হু’

যদিও ময়দানের অধিকাংশের মতে, করোনাভাইরাসের আবহে ফেডারেশন ঝুঁকি নিতে চাইবে না। এই পরিস্থিতিতে দর্শকশূন্য মাঠেই ডার্বি খেলা হবে। ইতিমধ্যে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ফাঁকা গ্যালারিতে ম্যাচ হয়েছে। ইতালি, স্পেনেও তাই হয়েছে। এবার ভারতেও তাই হবে বলে ধারণা ওয়াকিবহল মহলের।

বন্ধ করুন