বাড়ি > ভাগ্যলিপি > শ্রাবণে শিবের রুদ্রাভিষেকে মেলে বিশেষ ফল, জানুন এর খুঁটিনাটি
গোরুর দুধের অভিষেক করলে আরোগ্য লাভ হয়।
গোরুর দুধের অভিষেক করলে আরোগ্য লাভ হয়।

শ্রাবণে শিবের রুদ্রাভিষেকে মেলে বিশেষ ফল, জানুন এর খুঁটিনাটি

  • শ্রাবণ মাসে রুদ্রাভিষেক করলে শুভ ফল পাওয়া যায়। এ ছাড়া, কষ্ট ও গ্রহপীড়া দূর করার জন্যও রুদ্রাভিষেক কার্যকরী।

শিবের আশীর্বাদ লাভের জন্য শুক্ল যজুর্বেদের রুদ্রাষ্টাধ্যায়ী মন্ত্রোচ্চারণের সঙ্গে শিবলিঙ্গে বিশেষ বস্তু অর্পণ করা হয়, এটিই শিবের রুদ্রাভিষেক। শ্রাবণ মাসে রুদ্রাভিষেক করলে শুভ ফল পাওয়া যায়। এ ছাড়া, কষ্ট ও গ্রহপীড়া দূর করার জন্যও রুদ্রাভিষেক কার্যকরী।

মনে রাখবেন, মন্দিরে গিয়ে রুদ্রাভিষেক করা শ্রেষ্ঠ। তবে বাড়িতে পার্থিব শিবলিঙ্গেও অভিষেক করা যেতে পারে। বাড়ির তুলনায় মন্দিরে, আবার মন্দিরের তুলনায় নদী তীর ও নদী তীরের তুলনায় পর্বতে রুদ্রাভিষেক অত্যন্ত ফলদায়ী।

কোন বস্তু দিয়ে অভিষেকের কী ফল:

  • ঘিয়ের ধারায় অভিষেক করলে বংশ বিস্তার হয়।
  • আখের রস দিয়ে অভিষেক করলে মনস্কামনা পূর্ণ হয়, দুর্যোগ নষ্ট হয়।
  • চিনি মিশ্রিত দুধের অভিষেক ব্যক্তিকে বিদ্বান করে।
  • মধু দিয়ে অভিষেক করলে পুরনো রোগ নষ্ট হয়।
  • গোরুর দুধের অভিষেক করলে আরোগ্য লাভ হয়।
  • চিনি-জল দিয়ে অভিষেক সন্তান প্রাপ্তি সহজ করে তোলে।
  • ভস্ম দিয়ে অভিষেক করলে ব্যক্তি মোক্ষ-মুক্তি প্রাপ্ত করে।
  • তেল দিয়েও শিবের অভিষেক হয়। তবে এটি মারণ প্রয়োগ। সাধারণত না-করাই ভালো।

কখন রুদ্রাভিষেক করানো উত্তম ফলদায়ী:

রুদ্রাভিষেকের জন্য শিবের উপস্থিতি বিচার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিবের নিবাস না-দেখে রুদ্রাভিষেক করা অনুচিত। এতে হীতে বিপরীত হতে পারে। মনস্কামনা পূরণের জন্য রুদ্রাভিষেক করিয়ে থাকলে, শিবের বাসস্থান বিচার আবশ্যক।

কোথায় শিবের নিবাস মঙ্গলকারী:

  • প্রত্যেক মাসের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয়া ও নবমী, কৃষ্ণপক্ষের প্রতিপদা, অষ্টমী ও অমাবস্যায় মহাদেব গৌরীর সঙ্গে বাস করেন।
  • কৃষ্ণপক্ষের চতুর্থী ও একাদশী এবং শুক্লপক্ষের পঞ্চমী ও দ্বাদশী তিথিতে ভোলানাথ কৈলাসে থাকেন।
  • আবার কৃষ্ণপক্ষের পঞ্চমী ও দ্বাদশী এবং শুক্লপক্ষের ষষ্ঠী ও ত্রয়োদশী তিথিতে শিব নন্দীর ওপর সওয়ার হয়ে বিশ্বভ্রমণ করেন।

এই সমস্ত তিথিতে মহাদেবের নিবাস মঙ্গলকারী, তাই এ সময় রুদ্রাভিষেক করা যেতে পারে।

কখন মহাদেবের নিবাস অনিষ্টকারী:

  • কৃষ্ণপক্ষের সপ্তমী, চতুর্দশী, শুক্লপক্ষের প্রতিপদা, অষ্টমী, পূর্ণিমায়ে শিব শ্মশানে ধ্যানমগ্ন থাকেন।
  • কৃষ্ণপক্ষের দ্বিতীয়া, নবমী, শুক্লপক্ষের তৃতীয়া ও দশমীতে দেবসভায় উপস্থিত থেকে, মহাদেব সকল দেবতাদের সমস্যা শোনেন।
  • কৃষ্ণপক্ষের তৃতীয়া, দশমী ও শুক্লপক্ষের চতুর্থী ও একাদশীতে নটরাজ ক্রীড়ারত থাকেন।
  • কৃষ্ণপক্ষের ষষ্ঠী, ত্রয়োদশী ও শুক্লপক্ষের সপ্তমী ও চতুর্দশীতে রুদ্রদেব ভোজন করেন।

এই তিথিতে সকাম অভিষেক করা উচিত নয়। তবে শিবরাত্রি, প্রদোষ ও শ্রাবণ মাসের সোমবার সিদ্ধ পীঠ অথবা জ্যোতির্লিঙ্গের ক্ষেত্রে শিবের বাসস্থান বিচার করা জরুরি হয় না। এই স্থান ও সময় সর্বদা মঙ্গলকারী।

বন্ধ করুন