বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ধর্ষণের চেষ্টার পর প্রাণনাশের হুমকি, আত্মহত্যার চেষ্টা নাবালিকার, অধরা ১
জলপাইগুড়িতে নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ। প্রতীকী ছবি।

ধর্ষণের চেষ্টার পর প্রাণনাশের হুমকি, আত্মহত্যার চেষ্টা নাবালিকার, অধরা ১

  • দুই যুবক বাড়িতে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। জামা কাপড় ছিঁড়ে গোপনাঙ্গে হাত দেয়।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রায় প্রতিদিনই রাজ্যের কোনও না কোনও জেলা থেকে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের অভিযোগ উঠে আসছে। এই অবস্থায় রাজ্যে নারীদের সুরক্ষা প্রশ্নের মুখে। এবার এক নাবালিকা ধর্ষণের চেষ্টা করায় গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে ওই নাবালিকা। ঘটনাটি জলপাইগুড়ির ময়নাগুড়ি ধর্মপুর এলাকার। এই ঘটনায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ওই নাবলিকা। বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। যার মধ্যে একজনকে অভিযোগ পাওয়ার পরেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পারিবারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনাটি একমাস আগে ঘটেছিল। এ ঘটনায় অভিযুক্ত রয়েছে দুই ভাই অজয় রায় এবং বিজয় রায়। যার মধ্যে অজয় রায় এখনও অধরা রয়েছে। একমাস ধরেও পুলিশ ওই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এই ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেছেন নাবালিকার পরিবার। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছিল প্রায় দেড় মাস আগে। অভিযোগ বাড়িতে একাই বসেছিল ওই নাবালিকা। তখনই দুই যুবক বাড়িতে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। জামা কাপড় ছিঁড়ে গোপনাঙ্গে হাত দেয়। এই ঘটনায় পুলিশে অভিযোগ জানানো হলে পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করে। এদিকে ধৃত যুবক কয়েকদিনের মধ্যেই জেল থেকে ছাড়া পেয়ে যায়।

পরিবারের অভিযোগ, অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য নাবালিকাকে চাপ দেওয়া হচ্ছিল। এমনকি নির্যাতিতাকে প্রাণনাশের হুমকিও দেওয়া হচ্ছিল। সেই চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ওই নাবালিকা। প্রথমে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখান থেকে তাকে মেডিক্যাল কলেজে রেফার করা হয়। এই ঘটনায় সমালোচনায় সরব হয়েছেন জলপাইগুড়ি জেলা বিজেপি সভাপতি বাপি গোস্বমি। রাজ্যে সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘এক মাসের বেশি সময় ধরে পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে পারছে না।’

বন্ধ করুন