বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ছিপে উঠল কচ্ছপ, বাঁচাতে ফাঁড়িতে নিয়ে হাজির হলেন মৎস্যশিকারী
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

ছিপে উঠল কচ্ছপ, বাঁচাতে ফাঁড়িতে নিয়ে হাজির হলেন মৎস্যশিকারী

  • কচ্ছপ নিয়ে একজনকে ফাঁড়িতে ঢুকতে দেখে চমকে ওঠেন পুলিশকর্মীরা। ভাবেন ভেট দিতে এসেছেন বুঝি। পরে গৌতমবাবুর মুখে গোটা ঘটনা শুনে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন তাঁরা।

উদাসীনতার ছড়ছড়ির মধ্যেই বন্যপ্রাণ রক্ষায় বিরল নজির রাখলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের ক্ষীরপাইয়ের বাসিন্দা এক ব্যক্তি। পুকুরে ছিপ ফেলে ওঠা কচ্ছপ নিয়ে পৌঁছলেন ফাঁড়িতে। কচ্ছপ হাতে এক ব্যক্তিকে ফাঁড়িতে পৌঁছতে দেখে চক্ষু ছানাবড়া পুলিশকর্মীদেরও। 

ঘটনা মঙ্গলবার দুপুরের। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের বৃষ্টিতে এখন থইথই মেদিনীপুরের পুকুর-দিঘি-খানা-খন্দ। আর তাতেই অবসর কাটাতে ছিপ ফেলেছিলেন ক্ষীরপাই পুরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা গৌতম বালিয়ার। ছিপের সুতোয় টান মারতে দেখেন, উঠেছে পেল্লায় এক কচ্ছপ। গ্রামে গঞ্জে এই ভাবে কচ্ছপ পেলে উদরস্থ করে ফেলাই দস্তুর। কিন্তু গৌতমবাবু যে অন্য ধাতুর মানুষ। বন্যপ্রাণ ধ্বংস করতে নারাজ তিনি। তাই কচ্ছপ হাতে পৌঁছে যান ক্ষীরপাই ফাঁড়িতে। 

ওদিকে কচ্ছপ নিয়ে একজনকে ফাঁড়িতে ঢুকতে দেখে চমকে ওঠেন পুলিশকর্মীরা। ভাবেন ভেট দিতে এসেছেন বুঝি। পরে গৌতমবাবুর মুখে গোটা ঘটনা শুনে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন তাঁরা। খবর যায় দাসপুরের সুলতানপুর বিট অফিসে। বনকর্মীরা কচ্ছপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যান। সেটিকে উপযুক্ত জলাশয়ে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে বনদফতরের তরফে জানানো হয়েছে।

গৌতমবাবু বলেন, ‘কচ্ছপসহ অন্যান্য বন্যপ্রাণীরা দিন দিন বিপন্ন হয়ে পড়ছে। তাদের বাসস্থল দখল করছে মানুষ। আমরা যদি তাদের রক্ষা করতে না পারি তবে আমাদের সন্তানদের জন্য অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করে আছে। সেসব ভেবেই প্রাণীটিকে রক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিই। ওরা জলে জঙ্গলেই থাকুক। খাবার জন্য তো আরও কত জিনিস রয়েছে।’ 

 

বন্ধ করুন