বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মাস্কের বালাই নেই,সরকারি বিধি অমান্য করে জলপাইগুড়ির স্কুলে পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাস
ছবিটি প্রতীকী
ছবিটি প্রতীকী

মাস্কের বালাই নেই,সরকারি বিধি অমান্য করে জলপাইগুড়ির স্কুলে পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাস

  • রাজ্যে গত মাসেই নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর অফলাইন ক্লাস চালু হয়েছে। তবে জলপাইগুড়ির স্কুলে পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাসও চালু হয়ে গিয়েছিল ইতিমধ্যেই।

কোভিড আবহে দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থেকেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দরজা। তবে সংক্রমণের গ্রাফ নিম্নমুখী হতেই ফের স্বাভাবিক জনজীবনে ফিরতে উদ্যোগী হয়েছে সবাই। এমন সময় ধাপে ধাপে স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সেই মতো রাজ্যে গত মাসেই নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর অফলাইন ক্লাস চালু হয়েছে। পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীর ক্লাস চালুর ভাবনাও ঘোরাফেরা করছে সরকারের মাথায়। তবে সরকারি নির্দেশিকার আগেই নিয়ম ভঙ্গ করে জলপাইগুড়ির স্কুলে পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাস চলছে। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশিত হতেই তোলপাড় শুরু হয়।

জলপাইগুড়ি সদর ব্লকের বাহাদুর অঞ্চলের সদর পশ্চিম মন্ডলের নাউয়া পাড়ার একটি স্কুলে ঘটনাটি ঘটে। জানা গিয়েছে, সংবাদমাধ্যমে পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাস চালুর বিষয়টি সামনে আসতেই প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ বিষয়টি খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ নেওয়ার পথে হেঁটেছে। স্কুলের প্রধান শিক্ষককে শোকজ নোটিস পাঠিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঘটনার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। ঘটনায় সরকারি বিধি অমান্য করায় ক্ষমা চেয়েছেন সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষকও।    

অভিযোগ, কোনও কোভিড বিধি না মেনেই ক্লাস চলছিল সেই স্কুলে। সরকারি বিধি অমান্য করে একই বেঞ্চে বহু পড়ুয়াকে বসিয়েই ক্লাস চলেছে। সামাজিক দূরত্ব, মাস্কের বালাই নেই। এই পরিস্থিতিতে গত পরশু স্কুলে পরীক্ষা নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। তাতেই শওরগোল পড়ে। খবর পেয়ে নড়েচড়ে বসে প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ। স্কুল ইন্সপেক্টরকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়। প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিস পাঠানো হয়।  

বন্ধ করুন