বাড়ি > বায়োস্কোপ > গুঞ্জন সাক্সেনায় মিথ্যে গল্প ফেঁদেছেন করণ জোহর,দাবি প্রাক্তন বায়ুসেনা অফিসারের
ছবির একটি দৃশ্যে জাহ্নবী কাপুর (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
ছবির একটি দৃশ্যে জাহ্নবী কাপুর (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

গুঞ্জন সাক্সেনায় মিথ্যে গল্প ফেঁদেছেন করণ জোহর,দাবি প্রাক্তন বায়ুসেনা অফিসারের

  • গুঞ্জন সাক্সেনায় ভারতীয় বায়ুসেনায় যে লিঙ্গ বৈষম্যের দিকটি তুলে ধরা হয়েছে তা নিয়ে সাফাই দিলেন রিয়েল লাইফ গুঞ্জন। 
  • তাঁর বক্তব্য ‘IAF একটা বিশাল বড় প্রতিষ্ঠান এবং এই ফোর্সের সম্মান সুবিশাল-তাই এই বিতর্কের কোনওরকম প্রভাব তাঁদের উপর পড়বে না’।

বিতর্ক থামছে না করণ জোহরের ধর্মা প্রোডাকশনের ছবি গুঞ্জান সাক্সেনা: দ্য কার্গিল গার্ল নিয়ে। ভারতীয় বায়ুসেনার পর এবার সরাসরি এই ছবির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন প্রাকক্তন বায়ু সেনা অফিসার নমরিতা চাণ্ডী। শরণ শর্মা পরিচালিত, এবং জাহ্নবী কাপুর অভিনীত এই ভারতীয় বায়ুসেনা আধিকারিক গুঞ্জন সাক্সেনার বায়োপিক।যদিও এই বায়োপিকে ভারতীয় বায়ুসেনার যে ইমেজ তুলে ধরা হয়েছে তা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে সেন্সার বোর্ড এবং স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সকে চিঠি লিখেছে স্বয়ং IAF। 

খোলা চিঠিতে নমরিতা চাণ্ডী লেখেন,  এই ছবিতে যে লিঙ্গ বৈষম্য দেখানো হয়েছে তা ভিত্তিহীন। পেশাগত জীবনে কোনও ধরনের অন্যায় ব্যবহার, অবমাননার মধ্যে আমি কখনও পড়িনি। বায়ুসেনার উর্দিধারীরা প্রকৃত অর্থে ভদ্রলোক ও পেশাদারিত্বে বিশ্বাসী বরাবর'। এখানেই থেমে থাকেননি নমরিতা চাণ্ডী তিনি দাবি করেন, ‘শ্রীবিদ্যা রঞ্জন প্রথম মহিলা পাইলট যিনি কার্গিল যুদ্ধে গিয়েছিলেন-গুঞ্জন নন,যদিও আমি নিশ্চিত যে এই বিষয়টা নিয়ে শ্রীবিদ্যা কোনওরকম আপত্তি জানাবে না-যে এই ক্রেডিটটা ওঁর থেকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে’।  গুঞ্জন সাক্সেনার সঙ্গেই ট্রেনিং নিয়েছেন নমরিতা,আউটলুকের জন্য লেখা খোলা চিঠিতে তিনি আরও বলেন, করণ জোহরের ধর্মা প্রোডাকশন নীল ইউনিফর্মের মানুষগুলো খুব বাজেভাবে তুলে ধরেছেন। তিনি লেখেন, আমি হতবাক যে ছবিতে দেখানো হয়েছে সেখানে মহিলাদের উর্দি পাল্টানোর ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরি করত পুরুষ অফিসাররা, তিনি লেখেন- ‘এমন অনেকবার হয়েছে যে আমাদের পোশাক বদলের সময় বাইরে পাহারা দিয়েছে আমাদের ভাইরা’। 

তিনি জাহ্নবীকে উপদেশ স্বরূপ বলেন, ‘দেখো মেয়ে আমি তোমাকে একটা কথা বলতে চাই দয়া করে এইরকম ছবিতে ভবিষ্যতে অভিনয় করো না যদি তুমি ভারতীয় মহিলা হিসাবে গর্ব কর। ভারতীয় পেশাদার পুরুষ ও মহিলাদের এমন ভাবমূর্তি তুলে ধরা বন্ধ কর’। টিম গুঞ্জন সাক্সেনার বিরুদ্ধে ছবিতে মিথ্যাচার দেখানোর অভিযোগ এনেছেন প্রাক্তন বায়ুসেনা অফিসার শ্রীবিদ্যা রঞ্জনও। 

এই নিয়ে জাহ্নবী বা প্রযোজক সংস্থার তরফে কোনওরকম বক্তব্য না পাওয়া গেলেও, বাস্তব জীবনের গুঞ্জন সাক্সেনা আত্মপক্ষ সমর্থন করে জানিয়েছেন, ‘কিছু মানুষ আমার জীবনের আধার এবং অস্তিত্ব ও পরিচিতিকে নষ্ট করবার চেষ্টা করছে’। এনডিটিভির জন্য লেখা এক কলামে গুঞ্জন লেখেন. ‘আমি এই বিষয়টা পরিষ্কার করতে চাই অত্যন্ত সততার সঙ্গে যে আমার বায়োপিকে কিছু ক্ষেত্রে সিনেমাটিক স্বতন্ত্রতা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু একটা জিনিস যেটা অবশ্যই তাঁরা বদলায়নি তা হল আমাকে,প্রকৃত গুঞ্জন সাক্সেনাকে। আমি এইটুকু বলতে পারি কোনওরকম দ্বিধা ছাড়া আমি আরও বেশি লোহা দিয়ে গড়া এবং স্থিরপ্রতিজ্ঞ একজন মানুষ যতটা সিনেমায় দেখানো হয়েছে’।

View this post on Instagram

First meeting ☺️

A post shared by Janhvi Kapoor (@janhvikapoor) on

IAF-তে লিঙ্গ বৈষম্যের যে বিষয়টি ছবিতে তুলে ধরায় এত বিতর্ক সেই সম্পর্কে কী বললেন গুঞ্জন সাক্সেনা?  তিনি লেখেন, ‘যাঁরা IAF-এর রেপুটেশন নিয়ে এত চিন্তিত তাঁদের আমি জানাতে চাই, যে IAF একটা বিশাল বড় প্রতিষ্ঠান এবং এই ফোর্সের সম্মান সুবিশাল-তাই এই বিতর্কের কোনওরকম প্রভাব তাঁদের উপর পড়বে না। সেটা লিঙ্গ বৈষম্য সংক্রান্ত হোক কিংবা অন্য কিছু। আমি নিজের কথা বলতে পারি, আমি যখন যোগ দিয়েছিলাম সেখানে কোনওরকম ভেদাভেদ ছিল না প্রতিষ্ঠানের তরফে। কিন্তু ব্যক্তিগত স্তরে তো সবার কোনও পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা সমান নয়’। 

যদিও রিয়েল লাইফ গুঞ্জন সাক্সেনার এই সাফাইয়ের সঙ্গে কোনওভাবেই মিল নেই খোদ IAF-এর বক্তব্যের। কারণ তাঁরা কড়া ভাষায় এই ছবির নিন্দা করে সেন্সার বোর্ডকে অভিযোগ জানিয়েছে- 'প্রাক্তন ফ্লাইট লেফেন্যান্ট গুঞ্জন সাক্সেনার অন-স্ক্রিন চরিত্রকে গৌরবান্বিত করতে গিয়ে ধর্মা প্রোডাকশন এমন কিছু পরিস্থিতি তুলে ধরেছে ভারতীয় বায়ুসেনার ওয়ার্ক কালচার সম্পর্কে, বিশেষত মহিলাদের জন্য যা একেবারেই সঠিক নয়।

শুধু আইএএফই নয়, গুঞ্জন সাক্সেনা: দ্য কার্গিল গার্লের সম্প্রচার মুক্তির দাবিতে সরব ভারতের জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন রেখা শর্মা। তিনি টুইট বার্তায় দাবি করেছেন এই ছবিতে লিঙ্গ বৈষম্যের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে তা ভিত্তিহীন। এবং সমাজকে ভুল বার্তা দেওয়া হচ্ছে এই ছবির মাধ্যমে। তিনি লেখেন,'আসল গুঞ্জন সাক্সেনার সকলের সামনে এসে বলা উচিত, ছবিতে সেনাবাহিনীর মধ্যে যে ধরনের লিঙ্গবৈষম্যের কথা বলা হয়েছে তার মধ্যে কোনওরকম বাস্তবতা আছে কিনা! সেনা অফিসাররা এমন গুন্ডাদের মতো আচরণ করছেন, আমি ভাবতেই পারি না। ভারতীয় সেনায় মহিলারা সবসময় সমমর্যাদা পেয়ে এসেছেন'।

বন্ধ করুন