বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘মমতা তাড়কা রাক্ষসী’, জাভেদ-শাবানার সঙ্গে সাক্ষাৎ নিয়ে কটাক্ষ কঙ্গনার
কঙ্গনার কটাক্ষ 
কঙ্গনার কটাক্ষ 

‘মমতা তাড়কা রাক্ষসী’, জাভেদ-শাবানার সঙ্গে সাক্ষাৎ নিয়ে কটাক্ষ কঙ্গনার

  • শাবানা আজমি ও জাভেদ আখতারের সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাক্ষাৎ-এর ‘মাফিয়াদের বৈঠক’ বলে আক্রমণ করলেন কঙ্গনা রানাওয়াত। 

বেফাঁস মন্তব্যের জন্য টুইটার থেকে আজীবনের মতো বিতাড়িত হয়েছেন কঙ্গনা রানাওয়াত। কিন্তু থেমে থাকার পাত্রী নন তিনি। আপতত শ্যুটিংয়ের কাজে দেশের বাইরে, কিন্তু দেশের হাল-হাকিকত নিয়ে খোঁজখবর তাঁর নখদর্পণে। গত বৃহস্পতিবার দিল্লি সফররত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেখা করেন বলিউডের বিখ্যাত দুই ব্যক্তিত্ব জাভেদ আখতার ও শাবনা আজমির সঙ্গে। এই বৈঠক নিয়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে কড়া আক্রমণ শাণালেন অভিনেত্রী। এর আগে ' রক্তখেকো রাক্ষসী মমতা' বলে ইনস্টাগ্রামে কুকথার বন্যা বইয়ে দিয়েছেন কঙ্গনা, এবার মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে 'তাড়কা রাক্ষসী’র তুলনা টানলেন।

এখানেই থেমে থাকেননি কঙ্গনা, জাভেদ-শাবানার সঙ্গের এই সাক্ষাৎ-কে ‘মাফিয়া’দের বৈঠক বলেও কটাক্ষ করেছেন তিনি। বরাবরই মোদীর প্রশংসক হিসাবে পরিচিত কঙ্গনার যেমন ‘চোখের বালি’ মমতা, তেমনই জাভেদ আখতারের সঙ্গেও নায়িকার সম্পর্ক আদায়-কাঁচকলায়। বর্তমানে কঙ্গনার বিরুদ্ধে আদালতে মামলাও লড়ছেন জাভেদ আখতার।

শুক্রবার ফেসবুকের দেওয়ালে কঙ্গনা লেখেন,‘জাভেদ আখতার ও শাবানা আজমি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন, যাঁকে সবাই তাড়কা নামে জানেন। এ বার আরও ছোট ছোট বৈঠক হবে। তার পরে বলিউডের মাফিয়ারা খানদের উপর চাপ দিয়ে ছোট প্রযোজনা সংস্থাগুলের ক্ষতি করবে।’ এখানেই থেমে থাকেননি কঙ্গনা, তিনি আরও লেখেন-'সব ভণ্ডরা মিলে তারড়া-কে দেবী হিসেবে পুজো করা শুরু করবে। দিন কে রাত, আর রাতকে দিন হিসেবে দেখানোর এই কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু এটা ভুলে যেও না, আমি সব দেশদ্রোহীদের উলঙ্গ করে ছাড়ব। ভণ্ডারা একটু সাবধান'। 

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল সামনে আসবার পর বারবার কঙ্গনার রোষের মুখে পড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী, এই নিয়ে অবশ্য পালটা কোনও মন্তব্য করতে শোনা যায়নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। মমতাকে লাগাতার ‘দানব’, ‘ভিলেন’,'রাক্ষুসী' বলে আক্রমণ করে অভিনেত্রী লিখেছিলেন বাংলা শীঘ্রই কাশ্মীরে পরিণত হবে। মমতাকে আক্রমণের জেরেই টুইটার থেকে ব্যান করা হয় কঙ্গনাকে, এরপর ফেসবুকে অভিনেত্রী মন্তব্য করেছিলেন, 'বাংলাদেশি আর রোহিঙ্গারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবচেয়ে বড় শক্তি… যা ট্রেন্ড দেখছি তাতে বাংলায় আর হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠ নেই এবং তথ্য অনুযায়ী গোটা ভারতের অন্য এলাকার তুলনায় বাংলার মুসলিমরা সবচেয়ে গরীব আর বঞ্চিত। ভাল আরেকটা কাশ্মীর তৈরি হচ্ছে'। 

কঙ্গনার মোদী-ভক্তি কারুর অজানা নয়। হামেশাই সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ থাকেন বলিউডের ‘কুইন’। মহারাষ্ট্রের উদ্ধব সরকারের সঙ্গে গত বছর থেকেই লাগাতার বিতর্কে জড়িয়েছেন কঙ্গনা। শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের বালিয়ার বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিংহ মমতাকে ‘লঙ্কিনী’ বলে কটাক্ষ করেন, আর তার ঘন্টাখানেকের মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ কঙ্গনার।

বন্ধ করুন