বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘গান্ধীর ইচ্ছায় নেহেরুকে প্রধানমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দেন পটেল’, বিস্ফোরক কঙ্গনা
বোমা ফাটালেন কঙ্গনা
বোমা ফাটালেন কঙ্গনা

‘গান্ধীর ইচ্ছায় নেহেরুকে প্রধানমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দেন পটেল’, বিস্ফোরক কঙ্গনা

  • দুর্বলচিত্ত নেহেরুকে বসিয়ে দেশ শাসন করতে চেয়েছিলেন গান্ধী, তাঁর ইচ্ছাতেই নিজের হক ছেড়ে দিয়েছিলেন সর্দার বল্লভভাই পটেল, দাবি কঙ্গনার। 

দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক কিংবা ইতিহাস- কোনও বিষয় নিয়েই মন্তব্য করতে পিছপা হন না অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত।শনিবার ‘লৌহমানব’ সর্দার বল্লভভাই পটেলের জন্মবর্ষিকীতে কঙ্গনা শ্রদ্ধার্ঘ জানালেন এক বিস্ফোরক টুইট বার্তার সঙ্গে। 

দেশের ঐক্য ও সংহতির বিষয়ে সর্দারভাইয়ের ভাবনাকে সম্মান জানিয়ে আজ সারা দেশে পালিত হচ্ছে ‘জাতীয় ঐক্য দিবস’। দেশের প্রথম উপ প্রধানমন্ত্রীর স্মরণেই ‘স্ট্যাচু অব ইউনিটি’ তৈরি করেছে মোদী সরকার। এদিন কঙ্গনা দাবি করেন, স্বাধীনতার পর দেশের প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য প্রার্থী ছিলেন বল্লভভাই। তবে গান্ধীর ইচ্ছায় তিনি নিজের দাবি ছেড়ে দিয়েছিলেন, কারণ নেহেরু ‘ভালো ইংরাজি বলতে পারতেন’। সঙ্গে বলিউডের কুইন যোগ করেন, এতে বল্লভভাইয়ের কোনও ক্ষতি না হলেও দেশের কয়েক দশকের ক্ষতি হয়ে গিয়েছে।

কঙ্গনা যোগ করেন, সেটা আমাদের অধিকার সেটা ছিনিয়ে নিতে হবে, নেওয়া উচিত। মহাত্মা গান্ধীকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে অভিনেত্রী লেখেন- 'সর্দারজি দেশের প্রকৃত লৌহমানব। গান্ধী নেহেরুর মতো দুর্বলচিত্তের একজনকে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসিয়েছিলেন যাতে উনি নিজে গোটা দেশ কন্ট্রোল করতে পারেন নেহেরুকে সামনে রেখে। প্ল্যানটা ভালো ছিল কিন্তু ওঁনার হত্যার পর যা হল সেটা বিরাট বিপর্যয় ছিল'।

কঙ্গনা যোগ করেন- সর্দার বল্লভভাই পটেল সেই মানুষ যিনি আজকের অখন্ড ভারত দেশবাসীকে উপহার দিয়েছেন। তবে নেতৃত্বদানের ক্ষমতা এবং দূরদর্শিতা হেলায় ত্যাগ করে বল্লভভাই পটেল দেশবাসীর সঙ্গে সঠিক বিচার করেননি, মন্তব্য মর্মাহত কঙ্গনার।

মোদীর শ্রদ্ধার্ঘ 
মোদীর শ্রদ্ধার্ঘ  (PTI)

উল্লেখ্য এদিন স্ট্যাচু অফ ইউনিটিকে গিয়ে সর্দার বল্লভভাই পটেলকে শ্রদ্ধার্ঘ জানান প্রধানমন্ত্রী মোদী। গুজরাতে দেশের প্রথম উপপ্রধানমন্ত্রীর স্মরণে তৈরি এই স্ট্যাচুই বিশ্বের সর্বোচ্চ মূর্তি।

বন্ধ করুন