বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘আম্মার থেকে বেশি কেউ ভালোবাসবে না’, তৈমুরের জন্মদিনে আবেগমাখা বার্তা করিনার
করিনার ভালোবাসার বার্তা 
করিনার ভালোবাসার বার্তা 

‘আম্মার থেকে বেশি কেউ ভালোবাসবে না’, তৈমুরের জন্মদিনে আবেগমাখা বার্তা করিনার

  • ছেলে তৈমুরের জন্মদিনে হৃদয় নিংড়ানো ইনস্টাগ্রাম পোস্ট করিনার। নায়িকা পরিষ্কার জানালেন তৈমুরকে তিনিই সবচেয়ে বেশি ভালোবাসেন। 

শীঘ্রই দ্বিতীয়বার মা হতে চলেছেন করিনা কাপুর খান। তবে অভিনেত্রীকে প্রথমবার মা হতে পারবার সুযোগ দিয়েছে তৈমুর। কথায় বলে মাতৃত্বেই নারীর পূর্ণতা, তাই করিনার জীবনে পূর্ণতা এনে দিয়েছে টিম (তৈমুরকে এই নামেই ডাকেন করিনা)। নায়িকার গোটা জগত জুড়ে রয়েছে তাঁর চার বছরের পুত্র সন্তান।দেখতে দেখতে বড় হয়ে গেল তৈমুর।রবিবার ছিল তৈমুরের চতুর্থ জন্মদিন। 

তৈমুরের জন্মদিনে ‘আম্মা’ করিনার তরফে এল বিশেষ বার্তা। এদিন ইনস্টাগ্রামে তৈমুরের একটি ছবি এবং একাধিক ছবির মন্তাজ শেয়ার করলেন করিনা। যেখানে গ্ল্যামারাস বলিউডের চাকচিক্যের বাইরে প্রকৃতি আর পশুপ্রেমী তৈমুরের ছবি উঠে এল। সঙ্গে করিনা সাফ জানালেন, ‘কেউই তোমাকে কোনওদিন আম্মার মতো বা তাঁর চেয়ে বেশি ভালোবাসতে পারবে না’। 

করিনা ক্যাপশনে লেখেন, 'আমার বাছা….আমি জানি, তুমি খুবই পরিশ্রমী। মাত্র চার বছর বয়সেই তোমার সমর্পণ এবং ফোকাস দেখে আমি গর্বিত। এই মুহূর্তে যেমন গরুকে খাওয়ানোর জন্য খড় তুলে নিয়েছ… কিন্তু সোনা, অনেক কাজের মাঝে বরফ চেখে দেখতে ভুলে যেও না। ফুল তুলো, লাফালাফি করো, গাছে চড়ো, আর হ্যাঁ তোমার পুরো কেকটাও খেতে ভুলো না। পৃথিবীতে যে জিনিসটা তোমায় সব থেকে বেশি আনন্দ দেবে, মুখে হাসি ফোটাবে, সেটাই তুমি করো। তোমার আম্মার থেকে বেশি কেউ ভালবাসতে পারবে না তোমায়। শুভ জন্মদিন সোনামণি। আমার টিম’।

করিনার শেয়ার করা ছবিতে দেখা গেল খড়ের আঁটি হাতে নিয়ে ছোট ছোট পা ফেলে এগোচ্ছে তৈমুর, চোখে-মুখে দৃঢ়তার ছাপ স্পষ্ট। গরুর খাবারের ব্যবস্থা করতে ছেলের এই পরিশ্রমের তারিফ করেছেন বেবো। ছবির মন্তাজে উঠে এল নানান বয়সের তৈমুরের ছবি, কোথাউ ছাগলের ছানাকে কোলে তুলে আদর করছে সে,কোনওটায় আবার বরফ হাতে নিয়ে খেলায় মত্ত টিম। কোনও ছবিতে মুখে গোঁফ এঁকে অঙ্গভঙ্গিতে ব্যস্ত তৈমুর। বাবার সঙ্গে তাল মিলিয়ে গিটারে মন রয়েছে তাঁর, আঁকা থেকে চকোলেট কেক বানাতেও ওস্তাদ সে! আর সব শেষে বাবা-মায়ের আদরে ভেসে যাচ্ছেন ছোটে নবাব। 

করিনা সম্প্রতি এক সাক্ষাত্কারে তৈমুরকে নিয়ে বলেন, ‘আমি ওঁর ব্যাপারে একটু বেশি রক্ষণশীল। হয়ত প্রথমবার মা হয়েছিলাম বলে। এই জার্নিটা অসাধারণ। প্রতিদিন তৈমুর আমাকে নতুন কিছু শেখায়। ও কেমন মা চায়, সেটাও ওই আমাকে শেখায় কিন্তু,আমার থেকে সেরাটা ও বার করে আনতে পারে, আর হয়ত সবচেয়ে খারাপটাও। কারণ কখনও কখনও আমি মেজাজ হারিয়ে ফেলি’। 

২০১২ সালে সইফ আলি খানের সঙ্গে বিয়ের পর্ব সেরেছিলেন করিনা। ২০১৬ সালের ২০ ডিসেম্বর তৈমুরের জন্মদিন দিয়েছিলেন বেবো। চলতি বছর অগস্টে দ্বিতীয় সন্তানের আগমন বার্তা জানিয়েছেন সইফিনা। 

বন্ধ করুন