বাড়ি > ঘরে বাইরে > অস্ত্রোপচার করতে গিয়ে মৃত্যু বেঙ্গালুরুর পুলিশ হেফাজতে থাকা তরুণের
কোভিড পজিটিভ ধরা পড়া সৈয়দ নাদিম অস্ত্রোপচার পরবর্তী চিকিৎসায় সাড়া না দেওয়ার ফলেই মারা গিয়েছেন। (প্রতীকী ছবি)
কোভিড পজিটিভ ধরা পড়া সৈয়দ নাদিম অস্ত্রোপচার পরবর্তী চিকিৎসায় সাড়া না দেওয়ার ফলেই মারা গিয়েছেন। (প্রতীকী ছবি)

অস্ত্রোপচার করতে গিয়ে মৃত্যু বেঙ্গালুরুর পুলিশ হেফাজতে থাকা তরুণের

  • পুলিশের দাবি, স্বাস্থ্য পরীক্ষায় কোভিড পজিটিভ ধরা পড়া সৈয়দ নাদিম অস্ত্রোপচার পরবর্তী চিকিৎসায় সাড়া না দেওয়ায় মারা গিয়েছেন।

বেঙ্গালুরুতে হিংসাত্মক ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হওয়া ২৪ বছরের তরুণ অস্ত্রোপচারের পরে মারা গেলেন। শনিবার এক সরকারি হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

বেঙ্গালুরুর অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হেমন্ত নিম্বলকর জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য পরীক্ষায় কোভিড পজিটিভ ধরা পড়া সৈয়দ নাদিম অস্ত্রোপচার পরবর্তী চিকিৎসায় সাড়া না দেওয়ার ফলেই মারা গিয়েছেন।

সোস্যাল মিডিয়া পোস্টে সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে অবমাননাকর উক্তির জেরে ছড়িয়ে পড়া হিংসায় জড়িয়ে গিয়েছিলেন নাদিম, অভিযোগ পুলিশের। বেঙ্গালুরুর কে জি হাল্লি এলাকার বাসিন্দা ওই তরুণকে গত ১২ অগস্ট গ্রেফতার করে জি জে হাল্লি থানার পুলিশ। আদালতে হাজির করলে তাঁকে পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন মহকুমা বিচারক। গত শুক্রবার বুকে ও পেটে ব্যথা এবং শ্বাসকষ্ট অনুভব করায় নাদিমকে বোওরিং হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভরতি করা হয়। তাঁর শরীরে ভোঁতা অস্ত্রের আঘাতজনিত চিকিৎসার জন্য অস্ত্রোপচার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। তবে ওই ক্ষত বুলেট দ্বারা হয়নি বলে দাবি করেছেন নিম্বলকর।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, নাদিমের পাকস্থলিতে ক্ষত তৈরি হয়েছিল সম্ববত পুলিশের কাঁদানে গ্যাসের শেল ফেটে।

পুলকেশী কেন্দ্রের কংগ্রেস বিধায়ক অখণ্ড শ্রীনিবাস মূর্তির ভাগ্নে পি নবীনের সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট থেকে সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়িয়ে পড়লে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটায় পুলিশ। পরে হিংসার মোকাবিলায় পুলিশ গুলি চালালে তিন জনের মৃত্যুও হয়।

কর্নাটকের এক স্বাস্থ্য আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘টিয়ার গ্যাস শেলের আঘাতে নাদিমের শরীরের অভ্যন্তরে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছিল বলে মনে করা হচ্ছে। তীব্র যন্ত্রণা হওয়ায় তাঁকে শুক্রবার বোওরিং হাসপাতালে আনা হয়। শনিবার তাঁর দেহে অস্ত্রোপচার করা হয় এবং শেষ পর্যন্ত তাঁর সেপসিস-এ মৃত্যু হয়।’ 

বেঙ্গালুরুর হিংসাত্মক ঘটনায় এ পর্যন্ত ২৪০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে অনেকেরই মুসলিমপন্থী এক রাজনৈতিক দলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগ রয়েছে বলে অভিযোগ পুলিশের। সাম্প্রদায়িক হিংসার সুবাদে কর্নাটরে মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টায় রয়েছে ওই সংগঠন।

বন্ধ করুন