বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Covid-19 vaccine dry run: দয়া করে টিকা নিয়ে গুজবে কান দেবেন না, আবেদন হর্ষ বর্ধনের
শনিবার দরিয়াগঞ্জের প্রাথমিক নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কোভিড ভ্যাক্সিন মহড়ায় উপস্থিত হন স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। ছবি- এএনআই।
শনিবার দরিয়াগঞ্জের প্রাথমিক নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কোভিড ভ্যাক্সিন মহড়ায় উপস্থিত হন স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। ছবি- এএনআই।

Covid-19 vaccine dry run: দয়া করে টিকা নিয়ে গুজবে কান দেবেন না, আবেদন হর্ষ বর্ধনের

  • অতীতের টিকাকরণ কর্মসূচির অভিজ্ঞতা বর্তমানে দেশব্যাপী কোভিড টিকাকরণ অভিযানে সাহায্য করবে। দয়া করে টিকার নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা সম্পর্কিত গুজবে কান দেবেন না।

করোনাভাইরাস টিকার নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা নিয়ে গুজবের দ্বারা চালিত হবেন না। শনিবার জনগণের উদ্দেশে এই আবেদন জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। সেই সঙ্গে অগ্রাধিকারের তালিকায় থাকা নাগরিকরা বিনামূল্যে এই টিকা পাবেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।

ভারতে কোভিড ভ্যাক্সিন প্রয়োগে ছাড়পত্রের বিষয়েকোনও রকম আপস করা হবে না, জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এ দিন দিল্লিতে টিকাকরণ মহড়ার জন্য নির্বাচিত দুটি কেন্দ্রে সরেজমিনে প্রক্রিয়া খতিয়ে দেখতে উপস্থিত হন হর্ষ বর্ধন। তিনি জানিয়েছেন, প্রথম দফায় টিকাকরণে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে এক কোটি স্বাস্থ্যকর্মী এবং ২ কোটি প্রথম সারির কোভিড যোদ্ধাকে। 

মন্ত্রী জানিয়েছেন, অগ্রাধিকারের তালিকায় রয়েছেন পঞ্চাশোর্ধ্ব ও তার চেয়ে কম বয়েসি নানাবিধ জটিল শারীরিক সমস্যা কবলিত নাগরিকরাও, যাঁদের আগামী জুলাই মাসের মধ্যে টিকা দেওয়া হবে। 

ভারতে বিশাল আকারের টিকাকরণ কর্মসূচি সফল করা নিয়ে কোনও রকম আশঙ্কাই মানতে নারাজ স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এই বিষয়ে তিনি জোর দিয়েছেন টিকাকরণ নিয়ে দেশের বিপুল অতীত অভিজ্ঞতার উপরে। 

এ দিকে, এ দিনই কোভিড টিকাকরণ কর্মসূচিকে ‘বিজেপি-র টিকা’ বলে কটাক্ষ করেছেন সমাজবাদী পার্টির সভাপতি অখিলেশ যাদব। লখনউয়ের সাংবাদিক বৈঠকে তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘বিজেপি-র টিকাকরণ কর্মসূচিতে ব্যবহৃত ভ্যাক্সিনকে কী ভাবে বিশ্বাস করব?’

অন্য দিকে, নয়া দিল্লিতে আর এক সাংবাদিক বৈঠকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর দাবি করেন, ভারতই বিশ্বের একমাত্র দেশ, যেখানে চারটি কোভিড ভ্যাক্সিন আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে। তিনি বলেন, এর মধ্যে একটি জরুরি ব্যবহারের জন্য শুক্রবার অনুমোদন পেয়ে গিয়েছে। 

নাম না করলেও তিনি যে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা সংস্থার যৌথ উদ্যোগে তৈরি কোভিশিল্ড ভ্যাক্সিনের কথা বলেছেন, তা বোঝাই গিয়েছে। 

শনিবার সকালে প্রথমে দিল্লির শাহদারাতে জিটিবি হাসপাতাল এবং পরে দরিয়াগঞ্জের প্রাথমিক নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভ্যাক্সিন মহড়ায় উপস্থিত হন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সেখানে তিনি বলেন, ‘আমাদের দৃঢ় মনোবল ও পরিশ্রমের ফলে ২০১৪ সালে ভারতকে পোলিওহীন ঘোষণা করা হয়। অতীতের টিকাকরণ কর্মসূচির অভিজ্ঞতা বর্তমানে দেশব্যাপী কোভিড টিকাকরণ অভিযানে সাহায্য করবে। দয়া করে টিকার নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা সম্পর্কিত গুজবে কান দেবেন না।’

বন্ধ করুন