ভারতের বৈদ্যুতিক গ্রিড খুবই শক্তপোক্ত ও স্থিতিশীল।
ভারতের বৈদ্যুতিক গ্রিড খুবই শক্তপোক্ত ও স্থিতিশীল।

নমোর আহ্বানে ঘরের আলো নিভিয়ে জ্বালালে বিপদের সম্ভাবনা নেই, ব্যাখ্যা কেন্দ্রের

চাহিদার তারতম্যের জেরে তৈরি হওয়া সমস্যা মোকাবিলা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও সাংবিধানিক পদক্ষেপ ইতিমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে।

আগামী ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আবেদনে সাড়া দিয়ে রাত ৯টা থেকে ৯ মিনিটের জন্য বাড়ির সব আলো নিভিয়ে দিয়ে প্রদীপ জ্বালাবে গোটা দেশ। তার জেরে বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যবস্থায় কোনও সমস্যা দেখা দেবে না, তা জানিয়ে দিল কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ মন্ত্রক।

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত বিভিন্ন রিপোর্টে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়, টানা ৯ মিনিট আলো নিভিয়ে রাখার পরে ফের একসঙ্গে সব জনপদে আলো জ্বলে উঠলে ভোল্টেজের গরমিলে বড়সড় ধাক্কার সম্মুখীন হতে পারে বৈদ্যুতিক গ্রিড। মনে করা হয়, তার জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বাড়ির বিদ্যুৎ চালিত যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম।

প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশে এই আবেদন জানানোর পরে মহারাষ্ট্রের বিদ্যুৎমন্ত্রী নীতিন রাউত মন্তব্য করেন, 'একসঙ্গে ৯ মিনিট বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করলে চাহিদায় হঠাৎ বড়সড় ঘাটতি দেখা দিতে পারে। তার জেরে দেশজুড়ে ব্ল্যাকআউট দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।'

এই কারণে দেশবাসীকে আগে থেকে বিকল্প ব্যবস্থা প্রস্তুত রাখতেও পরামর্শ দেন রাউত।

শনিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মন্ত্রকের তরফে ব্যাখ্যা করে বলা হয়েছে, ‘ভারতের বৈদ্যুতিক গ্রিড খুবই শক্তপোক্ত ও স্থিতিশীল। চাহিদার তারতম্যের জেরে তৈরি হওয়া সমস্যা মোকাবিলা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও সাংবিধানিক ব্যবস্থা ইতিমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে।’

এ দিনের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রীর সহজ আবেদন অনুযায়ী, ৫ এপ্রিল রাত ৯টা থেকে ৯.০৯ মিনিট পর্যন্ত বাড়ির সব আলো বন্ধ রাখতে হবে। কিন্তু এর আওতায় পড়ছে না রাস্তার আলো অথবা বাড়িতে ব্যবহার করা কম্পিউটার, টিভি, ফ্যান, রেফ্রিজারেটর কিংবা এসি।’

আরও বলা হয়েছে, ‘এ সব ছাড়াও ওই সময় আলো নিভবে না হাসপাতাল, নার্সিংহোম, গণপরিষেবামূলক দফতর, পুরনিগম দফকতর, অন্যান্য দফতর, থানা, উৎপাদন কেন্দ্রের মতো বেশ কিছু জায়গায়। প্রধানমন্ত্রী আর্জি জানিয়েছেন, শুধুমাত্র বসতবাড়ির আলো নয় মিনিটের জন্য নিভিয়ে রাখতে। জন নিরাপত্তার স্বার্থে সমস্ত পুর নিগম ও পুরসভাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাস্তার সব আলো ওই সময় জ্বালিয়ে রাখতে।’

বন্ধ করুন