দিল্লি থেকে বাড়ি ফেরার জন্য বাসে উঠতে মরিয়া মানুষ।
দিল্লি থেকে বাড়ি ফেরার জন্য বাসে উঠতে মরিয়া মানুষ।

শ্রমিকদের শহর ছাড়ার প্রবণতা রুখতে বাড়িভাড়া মকুবের নির্দেশ কেন্দ্রের

প্রবাসী শ্রমিকরা যে সব বাড়িতে ভাড়া থাকেন তাদের কাছ থেকে বাড়ি ভাড়া নেওয়া যাবে না ১ মাস।

করোনা লকডাউনের জেরে শহর ছাড়ার হিড়িক রুখতে ১ মাস বাড়িভাড়া মকুবের নির্দেশ দিল কেন্দ্রীয় সরকার। রবিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, ভিনরাজ্যের শ্রমিকদের থেকে ১ মাস ভাড়া নিতে পারবেন না বাড়ির মালিকরা। গোটা দেশে কার্যকর হবে এই নির্দেশিকা।

রবিবার কেন্দ্রের তরফে জারি নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, প্রবাসী শ্রমিকরা যে সব বাড়িতে ভাড়া থাকেন তাদের কাছ থেকে বাড়ি ভাড়া নেওয়া যাবে না ১ মাস। বিপর্যয় মোকাবিলা আইনবলে এই নির্দেশিকা জারি হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

লকডাউন জারি হতেই দিল্লি-সহ অন্যান্য বড় শহর ছাড়ার হিড়িক পড়েছে। যার জেরে শুক্রবার থেকে থিকথিকে ভিড় দিল্লির আনন্দ বিহার বাস টার্মিনাসে। এখান থেকেই উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও বিহারের বিস্তীর্ণ অংশে যাওয়ার দূরপাল্লার বাসগুলি ছাড়ে। শ্রমিকদের দাবি, শহরে থাকলে বাড়িভাড়া গুনতে হবে। অথচ হাতে কাজ নেই। ফলে আয়ও বন্ধ। এই পরিস্থিতিতে গ্রামে না পৌঁছতে পারলে খোলা আকাশের নীচে রাত কাটাতে হবে তাঁদের।

ওদিকে শ্রমিকরা গ্রামে গেলে লকডাউনের জেরে হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনা। তাদের মাধ্যমে গ্রামে-গঞ্জে প্রত্যন্ত এলাকাতেও পৌঁছে যাবে সংক্রমণ। ফলে যে করে হোক শ্রমিকদের লকডাউনে শহরে রাখতেই বদ্ধপরিকর কেন্দ্রীয় সরকার। তাই বাড়িভাড়া মকুবের নির্দেশ বলে মনে করা হচ্ছে।


বন্ধ করুন