বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > অবশেষে নড়ল টনক, অনুমোদন প্রাপ্ত বিদেশি টিকার ট্রায়ালের নিয়ম শিথিল কেন্দ্রের
অবশেষে নড়ল টনক, অনুমোদন প্রাপ্ত বিদেশি টিকার ট্রায়াল বিধি শিথিল কেন্দ্রের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
অবশেষে নড়ল টনক, অনুমোদন প্রাপ্ত বিদেশি টিকার ট্রায়াল বিধি শিথিল কেন্দ্রের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

অবশেষে নড়ল টনক, অনুমোদন প্রাপ্ত বিদেশি টিকার ট্রায়ালের নিয়ম শিথিল কেন্দ্রের

  • চাপের মুখে নড়ল টনক?

দীর্ঘদিন ধরে সেই দাবি জানিয়ে আসছেন বিশেষজ্ঞদের একাংশ। অবশেষে টনক নড়ল কেন্দ্রের। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) বা কয়েকটি দেশের অনুমোদন পেলে বিদেশি টিকার কয়েকটি নির্দিষ্ট ট্রায়ালের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়ার ঘোষণা করেছে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই)। তার ফলে বিদেশি টিকার জোগান প্রক্রিয়া আরও সহজ হবে বলে মত সংশ্লিষ্ট মহলের।

ভারতের সর্বোচ্চ ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, যে বিদেশি টিকাগুলি ইতিমধ্যে মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সি, ব্রিটেনের মেডিসিন অ্যান্ড হেলথকেয়ার প্রোডাক্টস রেগুলেটর এজেন্সি এবং জাপানের ফার্মাকিউটিক্যাল অ্যান্ড মেডিক্যাল ডিভাইস এজেন্সির অনুমোদন পেয়েছে বা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি ব্যবহারের তালিকায় আছে এবং অনেক মানুষকে ইতিমধ্যে প্রদান করা হয়েছে, ভারতে সেই টিকাগুলির অনুমোদন-পরবর্তী ট্রায়াল চালানো থেকেও ছাড় দেওয়া যেতে পারে। একইসঙ্গে যদি যে দেশের টিকা, সেই দেশের নিয়ন্ত্রণ সংস্থার অনুমোদন পেয়ে যায়, তাহলে সেন্ট্রাল ড্রাগস ল্যাবরেটরিতে প্রতিটি ব্যাচের টিকা পরীক্ষা না করলেও চলবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশজুড়ে করোনাভাইরাস টিকার আকাল মেটানোর লক্ষ্যেই ভারতে বিদেশি টিকা প্রদানের নিয়ম শিথিল করেছে কেন্দ্র। বিশেষত ১৮-৪৪ বছরের টিকাকরণ এবং সম্ভাব্য তৃতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা শিশুদের টিকাকরণের জন্য দেশে যে পরিমাণ প্রতিষেধকের প্রয়োজন আছে, তা পূরণেই নমনীয় হয়েছে কেন্দ্র।

সেইসঙ্গে করোনাভাইরাস টিকার অভাব পূরণে আরও একটি বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে নরেন্দ্র মোদী সরকার। সূত্র উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, যদি জরুরি ভিত্তিতে ভারতে টিকা ব্যবহারের জন্য ফাইজার এবং মর্ডানা আবেদন করে, তাহলে দুই সংস্থাকে আইনি কার্যকলাপের বিরুদ্ধে রক্ষাকবচ দেওয়া হতে পারে। তিনি জানিয়েছেন, ফাইজার এবং মর্ডানার মতো সংস্থা অন্যান্য দেশে যেরকম আইনি রক্ষাকবচ পেয়েছে, সেই ধাঁচেই দুই সংস্থার টিকাকে ভারতেও সুরক্ষাকবচ দেওয়ার পরিকল্পনা চলছে। তা মঞ্জুরও হতে যাবে বলে আশাবাদী ওই সূত্র।

সূত্র উদ্ধৃত করে ইতিমধ্যে সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ফাইজার ইতিমধ্যে জানিয়েছে যে আগামী জুলাই থেকে অক্টোবরের মধ্যে ভারতকে পাঁচ কোটি টিকার ডোজ দিতে তৈরি আছে। ইতিমধ্যে ভারতীয় সরকারের নির্দিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেছে মার্কিন সংস্থা। তাতে ফাইজারের কার্যকারিতা, অনুমোদন সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য প্রদান করা হয়েছে। পাশাপাশি মার্কিন সংস্থার তরফে দাবি করা হয়েছে, ভারতে হদিশ পাওয়া বি.১.১৬৭. (B.1.617.2) প্রজাতির করোনাভাইরাসের উপর ফাইজারের টিকার 'দারুণ কার্যকারিতা'-র প্রমাণ মিলেছে। যে টিকা ১২ বছর বা তার ঊর্ধ্বে সকলের জন্য উপযুক্ত বলে দাবি করা হয়েছে।

বন্ধ করুন