বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > টুইটারে SC ইস্টবেঙ্গল কোচ রবি ফাউলারের বিস্ফোরক মন্তব্য, নতুন বিতর্ক লাল হলুদে
SC ইস্টবেঙ্গল কোচ রবি ফাউলার (ছবি:গেটি ইমেজ)
SC ইস্টবেঙ্গল কোচ রবি ফাউলার (ছবি:গেটি ইমেজ)

টুইটারে SC ইস্টবেঙ্গল কোচ রবি ফাউলারের বিস্ফোরক মন্তব্য, নতুন বিতর্ক লাল হলুদে

  • ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের অন্যতম সংগঠনের টুইটারে ক্লাব কর্তাদের নিয়ে মন্তব্য করেছেন রবি ফাউলার। তাই নিয়েই শুরু হয়েছে বিতর্ক। 

ক্লাবের কর্তা ও লগ্নিকারী সংস্থার মধ্য অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগের মধ্যেই স্বস্তির খবর লাল-হলুদ সমর্থকদের জন্য। জনি অ্যাকোস্টার প্রাপ্য টাকা মিটিয়ে দিয়েছে ক্লাব। প্রাক্তন বিশ্বকাপারের বকেয়া টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরো টাকা না পাওয়ায় ফিফার দারস্থ হয়েছিলেন অ্যাকোস্টা। ফলে ট্রান্সফার ব্যানের খাঁড়াও ঝুলছিল লাল-হলুদের সামনে। আপাতত সেই অবস্থা থেকে কিছুটা স্বস্তি পেয়েছে ক্লাব। তবে শুধু অ্যাকোস্টা নন, আরও একাধিক ফুটবলারের টাকা বাকি রয়েছে। তাঁরাও ফিফায় গেলে তাঁদের টাকাও মিটিয়ে দিতে হবে ক্লাবকে। আর তা না হলে ফের ট্রান্সফার ব্যানের মুখে পড়তে হতে পারে ক্লাবকে।

এরই মধ্যে শ্রী সিমেন্টের সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের চূড়ান্ত চুক্তিপত্রে সই করা নিয়ে নতুন বিতর্ক তৈরি করলেন লাল-হলুদ কোচ রবি ফাউলার। চুক্তিপত্রে সই না করার জন্য কর্মকর্তাদের একহাত নিলেন তিনি। ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল ক্লাবের এক সমর্থক গোষ্ঠীর টুইটার ঘিরে। ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের অন্যতম সংগঠন রিয়াল পাওয়ারের তরফ থেকে বলা হয় আর কিছুদিনের মধ্যেই চুক্তিপত্রে সই হবে।

ক্লাবের কর্তা ও লগ্নিকারী সংস্থার মধ্য অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগের মধ্যেই স্বস্তির খবর লাল-হলুদ সমর্থকদের জন্য। জনি অ্যাকোস্টার প্রাপ্য টাকা মিটিয়ে দিয়েছে ক্লাব। প্রাক্তন বিশ্বকাপারের বকেয়া টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরো টাকা না পাওয়ায় ফিফার দারস্থ হয়েছিলেন অ্যাকোস্টা। ফলে ট্রান্সফার ব্যানের খাঁড়াও ঝুলছিল লাল-হলুদের সামনে। আপাতত সেই অবস্থা থেকে কিছুটা স্বস্তি পেয়েছে ক্লাব। তবে শুধু অ্যাকোস্টা নন, আরও একাধিক ফুটবলারের টাকা বাকি রয়েছে। তাঁরাও ফিফায় গেলে তাঁদের টাকাও মিটিয়ে দিতে হবে ক্লাবকে। আর তা না হলে ফের ট্রান্সফার ব্যানের মুখে পড়তে হতে পারে ক্লাবকে।

এরই মধ্যে শ্রী সিমেন্টের সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের চূড়ান্ত চুক্তিপত্রে সই করা নিয়ে নতুন বিতর্ক তৈরি করলেন লাল-হলুদ কোচ রবি ফাউলার। চুক্তিপত্রে সই না করার জন্য কর্মকর্তাদের একহাত নিলেন তিনি। ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল ক্লাবের এক সমর্থক গোষ্ঠীর টুইটার ঘিরে। ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের অন্যতম সংগঠন রিয়াল পাওয়ারের তরফ থেকে বলা হয় আর কিছুদিনের মধ্যেই চুক্তিপত্রে সই হবে। |#+|

এরপর সেই টুইটের জবাব দিয়ে ফাউলার লেখেন, ‘আমি অবাক, একটা সই করতে আট মাস লেগে যাওয়ায়। আমি জানি কেন এতদিন অপেক্ষা করলেন তাঁরা (ক্লাব কর্তারা)। আসলে তাঁরা চান আগের বারের থেকেও আমাদের কাজটা যাতে আরও কঠিন হয়।’ ফাউলারের এই মন্তব্যের পর দলের কোচের উপর বেজায় চটেছেন ক্লাব কর্তারা। তাঁরা বলেন, ‘উনি ফুটবলার হিসেবে অসাধারণ। কিন্তু যে প্রশিক্ষক ভারতে কাজ করতে এসে ভারতবাসীকে সম্মান দেন না, তাঁর কোনও অধিকার নেই ক্লাবের সম্পর্কে কথা বলার। গত মরসুমের আইএসএল চলাকালীন বারবার এসসি ইস্টবেঙ্গলের ভারতীয় ফুটবলারদের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিতর্ক তৈরি করেছিলেন ফাউলার। এই নিয়েই শুক্রবার ক্ষোভ উগরে দেন ক্লাব কর্তারা।

বন্ধ করুন