বাংলা নিউজ > ময়দান > ৬৮ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক
শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক বান্দুলা ওয়ার্নাপুরা (ছবি:টুইটার)
শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক বান্দুলা ওয়ার্নাপুরা (ছবি:টুইটার)

৬৮ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক

  • শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক বান্দুলা ওয়ার্নাপুরার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়েছে। শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড এই কঠিন পরিস্থিতিতে বান্দুলার পরিবারের প্রতি সমবেদনাও জানিয়েছে। প্রাক্তনরাও গভীর শোকজ্ঞাপন করেছেন।

না ফেরার দেশে পাড়ি দিলেন শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক বান্দুলা ওয়ার্নাপুরা। সোমবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন ৬৮ বছর বয়সী বান্দুলা। এই সংবাদে শোকস্তব্ধ হয়েগেছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট সহ ক্রিকেট মহল। ক্রিকেট বিশ্বের কাছে যা এক বড় ক্ষতি। শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক ছিলেন বান্দুলা ওয়ার্নাপুরা। খেলোয়াড়ি জীবনের ইতি টানার পর শ্রীলঙ্কার কোচিং সেট-আপে দায়িত্ব পালন শুরু করেছিলেন তিনি। পরে কোচিং পরিচালকের দায়িত্বও পালন করেছিলেন বান্দুলা। ক্রিকেট তারকার মৃত্যুতে এক বিবৃতিতে দিয়েছে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ড। তাদের তরফ থেকে শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট অধিনায়ক বান্দুলা ওয়ার্নাপুরার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়েছে। শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড এই কঠিন পরিস্থিতিতে বান্দুলার পরিবারের প্রতি সমবেদনাও জানিয়েছে।  প্রাক্তনরাও গভীর শোকজ্ঞাপন করেছেন।

১৯৮২ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার ইতিহাসের প্রথম টেস্ট ম্যাচের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন বান্দুলা ওয়ার্নাপুরা। টেস্টে দেশের হয়ে প্রথম রানও ছিল তার নামে। দ্বিতীয় ইনিংসে প্রথম ওভার বোলিংও করার মাধ্যমে বিরল রেকর্ডও গড়েছিলেন তিনি। দেশের হয়ে সবমিলিয়ে চারটি টেস্ট এবং ১২টি ওয়ানডে খেলেছেন বান্দুলা। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বান্দুলার অভিষেক হয় ১৯৭০ সালে, ভারতের বিশ্ববিদ্যালয় দলের বিরুদ্ধে। তার প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে টার্নিং পয়েন্ট ছিলো ১৯৭৩-৭৪ মরশুমে পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-২৫ দলের বিরুদ্ধে খেলা ১৫৪ রানের ইনিংস। ১৯৭৫ সালের বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন ওপেনারের। পরের ম্যাচে ডেনিস লিলি এবং জেফ থমসনের মতো ভয়ঙ্কর পেস জুটির বিরুদ্ধে ৩৯ বলে ৩১ রান করে ছিলেন তিনি।

সেই মরশুমে একটি চার দিনের ম্যাচে পাকিস্তান একাদশের বিপক্ষে ৯২ রানের ঝকঝকে একটি ইনিংস খেলেন বান্দুলা। ঐ ম্যাচে পাকিস্তান একাদশে আসিফ মাসুদ, সেলিম আলতাফ এবং ইন্তেখাব আলমের মতো টেস্ট বোলাররাও ছিলেন। বিশ্বকাপের পরের আসরে বান্দুলার নেতৃত্বে ভারতের বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয় পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা। ১৯৮১-৮২ মরশুমে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আসে তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ ৭৭ রান। কিন্তু ম্যাচটি আট উইকেটে হেরে যাওয়ায় তার এই ইনিংস বৃথা যায়।

বন্ধ করুন