বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Moloy Ghatak: মলয় ঘটককে সিবিআই হানার পর ইডির তলব, কবে যেতে হবে আইনমন্ত্রীকে?
মলয় ঘটককে নোটিশ পাঠাল ইডি।

Moloy Ghatak: মলয় ঘটককে সিবিআই হানার পর ইডির তলব, কবে যেতে হবে আইনমন্ত্রীকে?

  • অনুপ মাঝি ওরফে লালার ডায়েরিতে মলয়বাবুর নাম ছিল। তাঁর সঙ্গে মন্ত্রীর মাঝে কথাবার্তা হতো। এসব বিষয়ে বিশদে কথা বলতে বুধবার রাজভবনে সরকারি আবাসনে গিয়ে মন্ত্রীকে দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারীরা। মলয়বাবু তাঁদের জানিয়ে দিয়েছেন, কয়লা পাচারের বিষয়ে তাঁর কিছুই জানা নেই।

কয়েক ঘণ্টার হেরফের। সিবিআই হানা দিয়ে লাভ না হওয়ায় এবার ইডি’‌র তলব। কয়লা পাচার কাণ্ডে যেদিন জিজ্ঞাসাবাদ এবং বাড়ি–কোয়ার্টারে তল্লাশি চালাল সিবিআই, সেদিন রাতেই মলয় ঘটককে নোটিশ পাঠাল ইডি। এমনকী নয়াদিল্লিতে গিয়ে ফের হাজিরা দিতে বলা হয়েছে রাজ্যের আইনমন্ত্রীকে। যদিও তিনি এখনও এই নোটিশ নিয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন। মলয়বাবু ও তাঁর ভাইয়ের বাড়ি–সহ মোট ছ’জায়গায় তল্লাশি চালিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। আচমকা এই অভিযান নিয়ে মলয়বাবু রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অভিযোগ এনেছেন। তাঁর দাবি, বদনাম করার জন্যই এই কাজ করেছে সিবিআই।

কবে তলব করেছে ইডি? সূত্রের খবর, আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর নয়াদিল্লিতে রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটককে তলব করা হয়েছে। তিনি তদন্তে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন। এমনকী নয়াদিল্লিতে ডাকলেও তিনি গিয়ে সাড়া দেবেন বলে আগেই জানিয়েছিলেন। সেখানে সিবিআই হানার পর পরই ইডির নোটিশ বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। সিবিআইয়ের দাবি, মলয় ঘটকের বাড়ি থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি তারা পেয়েছে। তার জবাব লিখিতভাবে মন্ত্রীকে জানাতে বলা হয়েছে।

কী দাবি করছে সিবিআই?‌ সিবিআই সূত্রে দাবি, অনুপ মাঝি ওরফে লালার ডায়েরিতে মলয়বাবুর নাম ছিল। তাঁর সঙ্গে মন্ত্রীর মাঝে কথাবার্তা হতো। এসব বিষয়ে বিশদে কথা বলতে বুধবার রাজভবনে সরকারি আবাসনে গিয়ে মন্ত্রীকে দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারীরা। মলয়বাবু তাঁদের জানিয়ে দিয়েছেন, কয়লা পাচারের বিষয়ে তাঁর কিছুই জানা নেই। এই পরিস্থিতিতে ইডি মলয়বাবুকে ফের নয়াদিল্লিতে তলব করেছে। সূত্রের খবর, আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর তাঁকে সেখানে ডাকা হয়েছে।

মলয় ঘটকের বক্তব্য কী?‌ এই বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘‌এক বছর আগে ইডি সমন পাঠিয়েছিল। ওরা যতবার যে নথি চেয়েছে তা দিয়েছি। ওরা সব দেখেছেন। কিন্তু আশ্চর্য লাগল সিবিআইকে দেখে। ওরা আমাকে ডাকলেন না। কোনও জিজ্ঞাসাবাদ করলেন না। আমরা যখন ঘুমাচ্ছিলাম তখন ওরা আমার বাড়িতে এসে হাজির হলেন। আমার বাড়িতে হাজার খানেক আইনের বই রয়েছে, ফাইল রয়েছে। সবই সিবিআই আধিকারিকরা দেখেছেন। এই অভিযানের উদ্দেশ্য হল বদনাম করা।’‌ সিবিআইয়ের এই তৎপরতা নিয়ে প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উষ্মাপ্রকাশ করেন বলে সূত্রের খবর। বৈঠক থেকেই তিনি পূর্ব বর্ধমানের জেলা প্রশাসনকে বলেন, ‘‌ওখানে কেন্দ্রীয় বাহিনী কোনও বাড়াবাড়ি করছে কি না দেখুন।’‌

বন্ধ করুন