বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বন্ধ DPL-র একটি ইউনিট, বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা, সরব বিরোধীরা
দ্য দুর্গাপুর প্রজেক্ট লিমিটেড। ফাইল ছবি।

বন্ধ DPL-র একটি ইউনিট, বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা, সরব বিরোধীরা

  • ডিপিএল সূত্রে জানা গিয়েছে, এই তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৭ এবং ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ইউনিট থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়ে থাকে। তার মধ্যে ৭ নম্বর ইউনিট বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ফলে এখন ৮ নম্বর থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

দ্য দুর্গাপুর প্রোজেক্ট লিমিটেড বা ডিপিএলের একটি ইউনিট বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এর ফলে বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। প্রায় ৫৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন এই তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে দুটি ইউনিট রয়েছে। যার মধ্যে একটি ইউনিট ৩০০ মেগাওয়াট এবং অন্যটি ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম। ফলে একটি ইউনিট খারাপ হয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। যদিও দ্রুত সমস্যার সমাধান করা হবে বলে ডিপিএলের তরফে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। দুর্গাপুর পূর্বের তৃণমূল বিধায়ক নিজেই এ বিষয়ে উদ্যোগী হয়েছেন। তবে এ নিয়ে রাজ্য সরকারের পরিকল্পনার অভাবকে দায়ী করে সমালোচনায় সরব হয়েছেন বিরোধীরা।

ডিপিএল সূত্রে জানা গিয়েছে, এই তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৭ এবং ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ইউনিট থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়ে থাকে। তার মধ্যে ৭ নম্বর ইউনিট বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ফলে এখন ৮ নম্বর থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে কী কারণে ৭ নম্বর ইউনিট বন্ধ হয়ে গেল তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। এ বিষয়ে অবশ্য বিরোধীরা কয়লার পর্যাপ্ত যোগানের অভাবকেই দায়ী করেছেন। যদিও ডিপিএলের তরফে জানানো হয়েছে প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে ৭ নম্বর ইউনিট বন্ধ হয়ে গিয়েছে। উল্লেখ্য, ৭ নম্বর ইউনিটের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা প্রায় ৩০০ মেগাওয়াট এবং ৮ নম্বরের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৫০ মেগাওয়াট। এই দুটি ইউনিটের সাহায্যে গোটা দুর্গাপুরে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয় থাকে। এই অবস্থায় বিদ্যুতের ঘাটতি মেটাতে অন্য জায়গা থেকে বিদ্যুৎ আনা হবে বলে জানা গিয়েছে।

এ নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিরোধীরা। দুর্গাপুর পশ্চিমের বিজেপি বিধায়ক লক্ষণ ঘড়ুই বলেন, ‘পরিকল্পনার অভাবের জন্য এই অবস্থা।’ সিপিএমের পশ্চিম বর্ধমানের জেলা কমিটির সদস্য পঙ্কজ রায়ও পরিকল্পনার অভাবকে দায়ী করেছেন। অন্যদিকে, তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসি বিরোধীদের পাল্টা দিয়েছে। সংগঠনের ডিপিএল ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল দাস বলেন, ‘কয়লা একটি সাময়িক সমস্যা। দ্রুত ঠিক হয়ে যাবে।’ এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে দুর্গাপুর পূর্বের তৃণমূল বিধায়ক প্রদীপ মজুমদার জানান, কাল থেকেই ৭ নম্বর ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হয়ে যাবে।

বন্ধ করুন