বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > সারদা মামলা- অতিরিক্ত চার্জশিট ইডির, কুনাল ঘোষ ও সুমন চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তদন্তের আর্জি
এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট দফতর। ছবি সৌজন্য–এএনআই।
এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট দফতর। ছবি সৌজন্য–এএনআই।

সারদা মামলা- অতিরিক্ত চার্জশিট ইডির, কুনাল ঘোষ ও সুমন চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তদন্তের আর্জি

  • এদিন তা গ্রহণ করেছে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত
  •  

সারদাকাণ্ডে অতিরিক্ত চার্জশিট জমা পড়ল ব্যাঙ্কশাল আদালতে। শুক্রবার এই চার্জশিট আদালতে পেশ করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। সারদা মামলায় ২ সাংবাদিক ও তাঁদের ৩ সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্ত চেয়ে অতিরিক্ত চার্জশিট পেশ করল ইডি। এদিন ৫০ পাতার

অতিরিক্ত চার্জশিট (‌প্রসিকিউশন কম্পলেন্ট)‌ জমা পড়েছে ব্যাঙ্কশাল কোর্টের বিশেষ সিবিআই আদালতে। আদালতে এই চার্জশিট জমা দেন ইডির তদন্তকারী আধিকারিক অজয় লুহাচ। এরপর সেটি আদালতে পেশ করেন ইডির তরফের বিশেষ সরকারি আইনজীবী অভিজিৎ ভদ্র।

চার্জশিটে আদালতের কাছে দু’‌জন সাংবাদিক ও তাঁদের মোট তিনটি সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্ত করতে চেয়ে সমন জারির অনুমতি চেয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এদিন তা গ্রহণ করেছে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত।

এই প্রসঙ্গে ইডির তরফের বিশেষ সরকারি আইনজীবী অভিজিৎ ভদ্র বলেন, ‘‌ এই মামলায় ২০১৬ সালে ২১ জনের নামে প্রথম চার্জশিট জমা দেওয়া হয়েছিল। তারপর সিবিআইয়ের চার্জশিট দেওয়া বাকি থাকায় আমরা পুনরায় চার্জশিট জমা দিতে পারছিলাম না। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার চার্জশিট জমা পড়ার পরই আমাদের প্রক্রিয়া শুরু হয়। এদিন সুমন চট্টোপাধ্যায় ও কুণাল ঘোষ ছাড়াও তাঁদের মোট ৩টি সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্ত করতে চেয়ে ৫০ পাতার অতিরিক্ত চার্জশিট জমা দেওয়া হয়েছে।’‌

সারদার আর্থিক তছরুপের মামলায় জমা দেওয়া এই অতিরিক্ত চার্জশিটে নাম উঠে এসেছে তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তথা প্রাক্তন সাংবাদিক কুণাল ঘোষ ও সাংবাদিক সুমন চট্টোপাধ্যায়ের। সেখানে তাদের এই তিনটি সংস্থার বিরুদ্ধে সারদার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তুলেছে ইডি। এই চার্জশিটে রয়েছে কুণাল ঘোষের একটি সংস্থা ‘‌স্ট্র্যাটেজি মিডিয়া কমিউনিকেশন প্রাইভেট লিমিটেড’‌ যেখানে তিনি ডিরেক্টর পদে আসীন ছিলেন। আর সুমন চট্টপাধ্যায়ের ‘‌দিশা প্রোডাকশন অ্যান্ড মিডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড’‌ ও ‘‌একদিন মিডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড’‌।

যদিও চার্জশিটে যে দু’জনের নাম রয়েছে, ইতিমধ্যেই তাঁরা গ্রেফতার হয়ে বেশ কয়েকবছর কারাগারে বন্দিদশা কাটিয়েছেন। অবশ্য এখন দু’‌জনেই জামিনে মুক্ত হয়ে জেলের বাইরে রয়েছেন। প্রাক্তন রাজ্যসভার সাংসদ কুণাল ঘোষ রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। মাসদুয়েক আগেই তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক পদও পেয়েছেন। পাশাপাশি সংবাদ জগতের সঙ্গেও নিজেকে ওতপ্রোতভাবে যুক্ত রেখেছেন। অন্য দিকে, বিশিষ্ট তথা বর্ষীয়ান সাংবাদিক সুমন চট্টোপাধ্যায় অবশ্য এখনও সাংবাদিকতার জীবনে ফিরে আসেননি। তিনি একান্তেই নিজের অবসর যাপন করছেন।

দীর্ঘ বিরতির পর এমনই একটা সময়ে পুনরায় সারদা মামলা নিয়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে ইডি। বিধানসভা নির্বাচনের আগেও এই মামলায় কুণাল ঘোষ-সহ আরও বেশ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। সেই সূত্রে ধরেই এ দিনের চার্জশিট জমা করা হয়েছে। সূত্রের খবর, কুণাল ঘোষ ও সুমন চট্টোপাধ্যায়রা কী ভাবে সারদা থেকে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন, সেই তথ্য বিস্তারিতভাবে চার্জশিটে তুলে ধরা হয়েছে।

সারদার থেকে এই দু’‌জনের তিনটি সংস্থার অ্যাকাউন্টে প্রতি মাসে কত টাকা ঢুকত, কী ধরনের আর্থিক লেনদেন হত, সমস্ত তথ্য উল্লেখ করেছে ইডি। এমনকী, যাঁদের নাম চার্জশিটে রয়েছে তাঁরা ব্যক্তিগতভাবেও লাভবান হয়েছেন কি না, সেই বিষয়টিও তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন ইডির তদন্তকারী আধিকারিকরা।

 

বন্ধ করুন