বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌তেমন ঘটনা ঘটলে মোদীজির ভ্যাকসিনের দোষ হতো’‌, তোপ দাগলেন শুভেন্দু
স্বাস্থ্যভবনে হাজির হলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী এবং বাঁকুড়ার সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার।
স্বাস্থ্যভবনে হাজির হলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী এবং বাঁকুড়ার সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার।

‘‌তেমন ঘটনা ঘটলে মোদীজির ভ্যাকসিনের দোষ হতো’‌, তোপ দাগলেন শুভেন্দু

  • সেখানে স্বাস্থ্যকর্তাদের কাছে স্মারকলিপি দিয়ে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাবি করেন তিনি।

কসবার ভুয়ো টিকা কাণ্ডকে হাতিয়ার করতে চাইছে বিজেপি। এমনকী সিবিআই তদন্তের দাবি নিয়ে কোমর বেঁধে ময়দানে নেমেছে গেরুয়া শিবির। একদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেছেন রাজ্যে ভ্যাকসিন সিন্ডিকেট চলছে। অন্যদিকে সায়ন্তন বসুর দাবি, সিবিআইকে দিয়ে তদন্ত করাতে হবে। তারই মধ্যে স্বাস্থ্যভবনে হাজির হলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী এবং বাঁকুড়ার সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার। সেখানে স্বাস্থ্যকর্তাদের কাছে স্মারকলিপি দিয়ে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাবি করেন তিনি।

কসবা কাণ্ড নিয়ে বিরোধী দলনেতা বলেন, ‘‌এটা বিরাট ষড়যন্ত্র। এজেন্সিকে দিয়ে তদন্ত করাতে হবে। সিবিআই যোগ্য এই তদন্তের জন্য। ভুয়ো টিকা নিয়ে এখনও কেউ মারা যাননি ঠিকই। তবে তেমন ঘটনা ঘটলে বলা হত, মোদীজি যে ভ্যাকসিন পাঠিয়েছেন তা থেকেই এটা ঘটেছে। এটা একটা বড় ষড়যন্ত্র। তাই তদন্ত করতেই হবে।’‌

শুক্রবার স্বাস্থ্যভবনে যাওয়ার আগে ট্যুইট করে সোচ্চার হন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি লেখেন, ‘‌কসবায় ভুয়ো টিকা কাণ্ডে ভুয়ো আইএএস অফিসারের ধরা পড়া আসলে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর বেহাল দশাকেই সামনে নিয়ে এসেছে। একজন সাংসদ সেখানে টিকা নিয়েছেন। সাধারণ মানুষের তাহলে নিরাপত্তা কোথায়?’‌ উল্লেখ্য, এখানে তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ মিমি চক্রবর্তী টিকা নিয়েছিলেন। আর তাঁর উদ্যোগেই গোটা চক্রটি ধরা পড়েছে এবং গ্রেফতার হয়েছে দেবাঞ্জন দেব।

এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে তোপ দেগে ফেসবুকে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ লেখেন, ‘‌এতদিন অন্যান্য সিন্ডিকেট চলত, এখন ভ্যাকসিনের সিন্ডিকেটও চলছে। ভ্যাকসিন পড়ে থাকছে, দেওয়া হচ্ছে না, ইচ্ছাকৃতভাবে ক্রাইসিস তৈরি করা হচ্ছে। হাতবদল হয়ে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে ভ্যাকসিন। ভুয়ো ভ্যাকসিনের ঘটনা পুরো সাজানো।’‌

বন্ধ করুন