বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > তিন নাকি ১০ শতাংশ DA দেওয়া হবে? প্রশ্ন শুনে মেজাজ হারালেন মমতা, অভিযোগ ‘লবি’-র
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

তিন নাকি ১০ শতাংশ DA দেওয়া হবে? প্রশ্ন শুনে মেজাজ হারালেন মমতা, অভিযোগ ‘লবি’-র

  • রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের একাংশের দাবি, এমনিতেই এখনও ২১ শতাংশ ডিএ বকেয়া আছে।

তিন নাকি ১০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা (ডিএ) দেওয়া হবে? সেই প্রশ্নে রীতিমতো ক্ষুব্ধ হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর প্রশ্ন , 'এখন থেকেই লবি করতে শুরু করেছেন?

বৃহস্পতিবার নবান্নে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের সঙ্গে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, আগামী জানুয়ারিতে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের তিন শতাংশ ডিএ দেওয়া হবে। তিনি বলেন, ‘ছোট্ট একটা কথার মধ্যে আমি আপনাদের একটা কথা বলে দিই। প্রতি বছর জানুয়ারিতে আমরা তো একটা ডিএ দিই। আমার ক্ষমতা থাক, বা না থাক, যেখান থেকে হোক জোগাড় করব। এবার জানুয়ারিতেও আপনারা তিন শতাংশ ডিএ পাবেন। এই পরিস্থিতির মধ্যেও।’

পরে এক সাংবাদিক তাঁকে প্রশ্ন করেন, তিন শতাংশ নাকি ১০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতার ঘোষণা করা হয়েছে। বলেন, 'আপনি বললেন, জানুয়ারি মাসে ডিএ বাড়াবেন, ওটা ৩ শতাংশ না ১০ শতাংশ।' তাতেই মেজাজ হারান মমতা। তিনি বলেন, 'তিন শতাংশ বলেছি.. আপনি হঠাৎ করে, আপনি কে? কে বলছেন বলুন তো?' প্রত্যুত্তরে ওই সাংবাদিক বলেন, 'না,না, আমাদের শুনতে অসুবিধা হয়েছে, অডিয়োতে প্রবলেম ছিল।'

তাতে অবশ্য মুখ্যমন্ত্রীর রাগ কমেনি। সাংবাদিক মাঝে কথা বলার কিছু চেষ্টা করলেও মুখ্যমন্ত্রী বলেন,  ‘তার মানে আপনি কি এখন থেকে লবি করতে শুরু করেছেন? টাকাটা আপনি দিয়ে দিন না। বা আপনার অর্গানাইজেশনকে বলুন দিয়ে দিতে। সেটা আপনি আমায় জিজ্ঞাসা করতে পারতেন যে কত পার্সেন্ট। তা না বলে আপনি একটা সাবজেক্ট বলে দিলেন, তাতে আমার মাইন্ডটা জানা যাচ্ছে (তাতে আপনার উদ্দেশ্যটা বোঝা যাচ্ছ)। এগুলো করবেন না। প্লিজ। দয়া করে এগুলো করবেন না।’

সাংবাদিক অবশ্য দাবি করেন, অডিয়ো সমস্যা হচ্ছিল। তাই শুনতে পাননি। জবাবে মমতা জানান, আগেই তিনি মাইকে শুনতে পাচ্ছেন কিনা, তা জানতে চেয়েছিলেন। ‘রাজনীতি’ না করার পরামর্শ দিয়ে মমতা বলেন, ‘ভাই, আপনি কানে শুনতে না পেলে আমি কী করতে পারি, কানে মেশিন লাগান।’

মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, অন্য বছর দু'শতাংশ ডিএ দেওয়া হয়। এবার তা বাড়িয়ে তিন শতাংশ করা হয়েছে। একইসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের আমলে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের কী মহার্ঘ ভাতা সংক্রান্ত কী কী সুবিধা প্রদান করা হয়েছে, তা অর্থসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীকে জানাতে বলেন। সেই মতো তিনি জানান, ২০১১ সালে ৩০ শতাংশ ডিএ দেওয়া হয়েছিল। তারপর ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে যখন পে-কমিশন চালু করা হযেছিল, ১২৫ শতাংশ ডিএ হয়ে গিয়েছিল। তারপর ১২৫ শতাংশ ডিএ বেসিকের সঙ্গে যোগ করে ২.৭৫ গুণ করে বেতন দেওয়া হচ্ছে। অর্থসচিব বলেন, ‘মার্জড ডিএ এবং বেসিকের উপর ৩ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। যেটা সংশোধিত পে-স্কেল, তার উপর দেওয়া হবে।’

কিন্তু আচমকা মেজাজ কেন হারালেন মমতা? রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের একাংশের দাবি, এমনিতেই এখনও ২১ শতাংশ ডিএ বকেয়া আছে। জানুয়ারিতে তা বেড়ে ২৪ শতাংশ হবে। সেই তিন শতাংশ মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করা হয়েছে। তার ফলে মমতার ঘোষণার কর্মচারীদের একাংশ খুশি নন। মনে ক্ষোভ আছে। সংশ্লিষ্ট মহলের মতে, আগামী বছর ভোটের আগে মহার্ঘ ভাতার বিষয়টি রাজ্যের শাসক দলের যথেষ্ট চাপ বাড়াতে পারে। সে বিষয়ে সম্ভবত অবহিত মমতা। ডিএ ঘোষণার পর শাসক দলের প্রভাবিত কর্মী সংগঠনের হাততালির পর সেই অস্বস্তিকর বিষয়ে উঠে আসায় মমতা সম্ভবত রেগে যান বলে ধারণা রাজনৈতিক মহলের।

বন্ধ করুন