বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > লখিমপুর মামলায় যোগী সরকারের রিপোর্টে অসন্তুষ্ট সুপ্রিম কোর্ট, নজরদারির জন্য নিয়োগ করা হবে ভিনরাজ্যের প্রাক্তন বিচারপতিকে
লখিমপুর খেরির ঘটনার দিন রাস্তার ধারে পড়ে পোড়া গাড়ি। (ফাইল ছবি)
লখিমপুর খেরির ঘটনার দিন রাস্তার ধারে পড়ে পোড়া গাড়ি। (ফাইল ছবি)

লখিমপুর মামলায় যোগী সরকারের রিপোর্টে অসন্তুষ্ট সুপ্রিম কোর্ট, নজরদারির জন্য নিয়োগ করা হবে ভিনরাজ্যের প্রাক্তন বিচারপতিকে

  • সুপ্রিম কোর্টের তরফে বলা হয়, 'আমরা যেরম আশা করেছিলাম সেই গতিতে তদন্ত হচ্ছে না'।

লখিমপুর খেরিতে ৩ অক্টোবরের সহিংসতার ঘটনায় উত্তরপ্রদেশ সরকারের দায়ের করা স্ট্যাটাস রিপোর্টে সন্তুষ্ট নয় সুপ্রিম কোর্ট। যোগী সরকারের জমা দেওয়া রিপোর্টে হতাশা প্রকাশ করে সুপ্রিম কোর্টের তরফে বলা হয়, 'আমরা যেরম আশা করেছিলাম সেই গতিতে তদন্ত হচ্ছে না'। লখিমপুরের ঘটনায় চার কৃষক এবং একজন স্থানীয় সাংবাদিক সহ মোট আটজন নিহত হয়েছিল।

এদিকে মামলায় বিভিন্ন এফআইআর-এ সাক্ষীদের মিশিয়ে দেওয়ার বিষয়ে অসন্তুষ্ট হয়েছে শীর্ষ আদালত। এর প্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্ট বলেছে যে এটি তদন্তের উপন নজরদারি চালানোর জন্য উত্তরপ্রদেশের বাইরে থেকে একজন উচ্চ আদালতের প্রাক্তন বিচারপতিকে নিয়োগ করবে। শুক্রবার এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি হবে।

সুপ্রিম কোর্ট বলে, 'মামলায় প্রমাণের যাতে কোনও ভাবে মিলিয়ে মিশিয়ে না ফেলা হয়, তা নিশ্চিত করার জন্য, আমরা মামলার তদন্তের পর্যবেক্ষণের জন্য ভিন্ন হাই কোর্টের একজন প্রাক্তন বিচারপতিকে নিয়োগ করতে আগ্রহী।' চলমান তদন্তের তত্ত্বাবধানের জন্য পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের বিচারপতি রাকেশ কুমার জৈন (অবসরপ্রাপ্ত) বা বিচারপতি রঞ্জিত সিংয়ের (অবসরপ্রাপ্ত) নাম প্রস্তাব করেছে শীর্ষ আদালত।

এদিকে সরকারের তরফে আদালতকে জানানো হয়েছে যে স্থানীয় সাংবাদিক রমন কাশ্যপ কৃষকদের প্রহারে নিহত হননি। বরং ঘটনার সাথে জড়িত গাড়ির দ্বারা পিষ্ট হয়ে মারা গিয়েছিলেন। এদিকে আদালত জানতে চেয়েছে যে সরকার শুধুমাত্র আশিস মিশ্রের ফোন বাজেয়াপ্ত করেছে কেন, মামলায় অন্য অভিযুক্তদের ফোন কেন বাজেয়াপ্ত করা হয়নি।

বন্ধ করুন