বাংলা নিউজ > ময়দান > বিন্দ্রাকে অলিম্পিক্সে সোনা জিততে সাহায্য করেছিলেন দ্রাবিড়, টিম ইন্ডিয়ার হেড কোচকে এতদিনে ধন্যবাদ জানালেন অভিনব

বিন্দ্রাকে অলিম্পিক্সে সোনা জিততে সাহায্য করেছিলেন দ্রাবিড়, টিম ইন্ডিয়ার হেড কোচকে এতদিনে ধন্যবাদ জানালেন অভিনব

অভিনব বিন্দ্রা ও রাহুল দ্রাবিড়।

ভারতের প্রথম ব্যক্তিগত অলিম্পিক্স সোনাজয়ী অভিনব বিন্দ্রা নিজেই জানালেন অজানা কাহিনি। জানা গেল, কীভাবে বিন্দ্রার পারফর্ম্যান্সে প্রভাব ফেলেছিলেন টিম ইন্ডিয়ার বর্তমান হেড কোচ।

দেশের প্রথম ব্যাক্তিগত অলিম্পিক্স সোনাজয়ী অভিনব বিন্দ্রা নিজেই বহু ক্রীড়াবিদের কাছে অনুপ্রেরণা। তবে ২০০৮ সালে বেজিং অলিম্পিক্সের ১০ মিটার এয়ার রাইফেল ইভেন্টে গোল্ড মেডেল জয়ের লড়াই তাঁকে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছিলেন কোনও শুটার নন, বরং টিম ইন্ডিয়ার বর্তমান হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড়।

অলিম্পিক্সে নামার আগে রাহুল দ্রাবিড়ের একটি ইনিংস দেখেই নিজেকে প্রস্তুত করেছিলেন বিন্দ্রা। মানসিকভাবে নিজেকে দৃঢ় করেছিলেন দ্রাবিড়ের বিশেষ একটি ইনিংস দেখেই। ‘ইন দ্য জোন’ পডকাস্টে দ্রাবিড়ের সঙ্গে আলোচনার সময় বিন্দ্রা নিজেই একথা জানান।

তারকা শুটার দ্রাবিড়কে বলেন, ‘আমি তোমার বিশেষ একটি ইনিংসের কথা বলতে চাই, যেটা আমার কেরিয়ারকে সঠিক পথে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছে। আমার কাছে সেটা তোমার খেলা সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। কারণ, সেই ইনিংসটা আমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছে। এটা সেই ম্যাচে, যেখানে তুমি ৪০টা ডট বল খেলার পরে এক রান করেছিলে।’

আরও পড়ুন:- IPL ধরাছোঁয়ার বাইরে, তবে সেরা ক্রিকেটারদের প্রচুর টাকার লোভ দেখাচ্ছে UAE-র নতুন T20 লিগ

আসলে বিন্দ্রার অলিম্পিক্স সোনা জয়ের মাস সাতেক আগে সিডনিতে একটি দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছিলেন দ্রাবিড়। সেই ইনিংসে ব্যক্তিগত ১৮ রানে ব্যাট করার সময় দ্রাবিড় টানা ৪০টি বলে কোনও রান সংগ্রহ করেননি। দর্শকদের কাছেও বিষয়টা বিরক্তিকর হয়ে দাঁড়িয়েছিল। তাই ৪০টি বলের পরে দ্রাবিড় যখন ১ রান সংগ্রহ করেন, দর্শকরা কার্যত কটাক্ষের মতোই উঠে দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানিয়েছিলেন দ্রাবিড়কে। দ্রাবিড় অবশ্য ব্যাট উঁচিয়ে অভিবাদন স্বীকার করতে ভোলেননি।

বিন্দ্রা পরক্ষণেই বলেন, ‘সেটা ২০০৮-এর জানুয়ারির কথা। সেটা ছিল অলিম্পিক্সের বছর। আমি ফিটনেস ক্যাম্পের জন্য অস্ট্রেলিয়ায় ছিলাম। কেরিয়ারের সেই পর্যায়ে আমি প্রতিযোগিতায় প্রথম শট নেওয়ার ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তাম। কেননা আমি নার্ভাস থাকতাম। হৃদস্পন্দন দ্রুত হয়ে যেত। আমি অধৈর্য হয়ে পড়তাম এবং তাড়াহুড়ো করে ফেলতাম। অনেক সময় সেটাই বিপর্যয় ডেকে আনত।’

আরও পড়ুন:- ভিডিয়ো: ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে সাজঘরে স্লোগান তুলল ভারত, ‘আমরা কারা? চ্যাম্পিয়ন’

সঙ্গে অভিনব যোগ করেন, ‘আমি টিভিতে তোমার সেই ইনিংসটা দেখেছিলাম। টানা ৪০টা ডট বল খেলার জন্য যে বিপুল ধৈর্যের দরকার হয়, সেটা অমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছিল। তাই আমি তোমাকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। ভারতীয় খেলাধুলোর ইতিহাসে তোমার সেই ইনিংসের বড় প্রভাব রয়েছে। কেননা সেটা সেই অলিম্পিক্স মরশুমে সরাসরি প্রভাব ফেলেছিল।’

বিন্দ্রার কথা শুনে দ্রাবিড়ের প্রতিক্রিয়া ছিল অত্যন্ত মজাদার। টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন তারকা বলেন, ‘এটা জেনে ভালো লাগছে যে, সেই ইনিংসটা কাউকে অন্তত সাহায্য করেছিল। না হলে যারা সেই ইনিংসটা দেখেছিল, তাঁদের কাছে রীতিমতো যন্ত্রণাদায়ক ছিল সেটা। এমনকি আমার কাছেও।'

বন্ধ করুন